বুধবার, ২৬ জুন ২০২৪, ০১:০৩ পূর্বাহ্ন

শ্রাবণকে জখম করে মেরে পিস্তল ঠেকিয়েছিলো ছাত্রলীগ

Coder Boss
  • Update Time : বুধবার, ২২ মে, ২০২৪
  • ৯৪ Time View

হামলায় গুরুতর আহত ছাত্রদলের সদ্য সাবেক সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণকে ঢাকা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে রাজধানীর একটি বেসরকারী হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। নিরাপত্তার কারণে তাকে ঢামেক হাসপাতাল থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে বলে নেতারা জানিয়েছেন।

মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে রাজধানীর সেগুনবাগিচা এলাকায় শিল্পকলা একাডেমির সামনে শ্রাবণসহ কয়েকজনের ওপর হামলা হয়। ছাত্রলীগ ও যুবলীগের ১৫-২০ সন্ত্রাসী নেতাকর্মী এ হামলা চালায় বলে প্রতক্ষদর্শী ও হামলার শিকার নেতারা জানিয়েছেন।

হামলায় শ্রাবণের শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারাত্মক জখম হয়েছে। আহত হয়েছেন ছাত্রদলের সাবেক সহসভাপতি মিয়া মোহাম্মদ ঝলকও।

শিল্পকলা একাডেমির সামনের প্রত্যক্ষদর্শী এক দোকানদার নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক গণমাধ্যম কে বলেন,রাত তখন ৯ টা হবে অনুমান। ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি শ্রাবন সেগুনবাগিচার শিল্পকলা একাডেমির সামনে চায়ের দোকানে চা খাচ্ছিলেন। এ সময় তার সাথে আরো দুই-তিন জন ছাত্রদলের সাবেক নেতাকর্মী উপস্থিতি ছিলেন। হঠাৎই পেছন থেকে স্থানীয় মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের কয়েক জন নেতা-কর্মী লোহার রড, ক্রিকেট স্ট্যম্প, হাতুড়ি দিয়ে হামলা করে। হামলাকারীদের একজন কোমর থেকে পিস্তল বের করে গুলি করতে চেয়েছিল। এ সময় ফুটপাতের চায়ের দোকানীরা ভয়ে সরে যায়।

আহত শ্রাবন এক গণমাধ্যম কে বলেন, সারাদিন আমি মামলার কাজে উচ্চ আদালতে ছিলাম। সন্ধ্যার পর আইনজীবীর চেম্বার থেকে বের হয়ে মৎস্য ভবনের পাশে শিল্পকলা একাডেমির গেইটে রাস্তায় দাঁড়িয়ে চা খাচ্ছিলাম। হঠাৎ পেছন থেকে আমার ওপর হামলা করে। পরিস্থিতি বুঝে ওঠার আগেই আমার শরীরের বিভিন্ন স্থানে লোহার রড, ক্রিকেট স্ট্যম্প এবং হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করে। এ সময় হামলাকারীদের মধ্যে একজন আমার বুকে পিস্তল ঠেকিয়ে দেয়। স্থানীয় কেউ ওদের ভয়ে আমাদের রক্ষা করতে এগিয়েও আসেনি।

শ্রাবণ বলেন, আমার সাথে থাকা সহকর্মীরা আমাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে জরুরী বিভাগে প্রাথমিক চিকিৎসা নেই। নিরাপত্তা এবং আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের তৎপরতায় আমি ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে চলে আসি। এখন রাজধানীর একটি বেসরকারী হাসপাতালে ভর্তি হয়ে উন্নত চিকিৎসা নিচ্ছি।

হামলার শিকার শ্রাবণের পক্ষ থেকে পুলিশের কাছে কোনো অভিযোগ করা হয়নি। এর কারণ হিসেবে শ্রাবন বলেন, পুলিশের কাছে গেলে উল্টো আমাদেরকেই আসামি করে মামলা করে দেবে।

ঘটনার বিষয়ে ছাত্রলীগের কারও বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
©ziacyberforce.com
themesba-lates1749691102