শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:৩৬ অপরাহ্ন

We revolt থেকে জিয়া সাইবার ফোর্স – Zia Cyber Force এর সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

Coder Boss
  • Update Time : শনিবার, ২০ মে, ২০২৩
  • ৩৮২ Time View

বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম।

আলহামদুলিল্লাহ, লাখ কোটি শুকরিয়া মহান রব্বুল আলামিনের প্রতি।

We revolt থেকে > জিয়া সাইবার ফোর্স – Zia Cyber Force নিয়ে কিছু কথা।

২০১৫ সাল এর ৫ মার্চ থেকে ২০২৩
শুরুটা হয়েছিল দেশের চরম সংকটকালে, গনতান্ত্রিক আন্দোলন তখনো চলছে, গনতন্ত্রের জননী, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া তখন বালুর ট্রাক ও ফ্যাসিবাদী বাহিনী দ্বারা বেষ্টিত।
সারাদেশের সুস্থ আন্দোলন কে ফ্যাসিস্টরা কূটকৌশলে সহিংস করে তুলে তার দায়ভার তখন চাপিয়ে দিচ্ছে বিএনপির উপর।
সকল পেইড মিডিয়া ফ্যাসিস্টদের পক্ষে ও গনতন্ত্রের বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল ও সমমনাদের নাস্তানাবুদ করে চলছে, আওয়ামী আগুন সন্ত্রাসের দায় চাপাচ্ছে বিএনপির উপর।
ওদিকে ফ্যাসিস্টদের পোষ্য শাহাবাগীদের অন্যায়ের বিরুদ্ধে কিছু নীতি বান দেশপ্রেমিক জাতীয়তাবাদী জিনিয়াসের অবিরাম লড়াই থেকে শিক্ষা নিয়ে, তারা সিদ্ধান্ত নেয় ফেসবুকে সঙ্গবদ্ধ হয়ে কাজ করবে।
সেই থেকে গঠিত হয় ফেসবুক গ্রুপ জেড_ফোর্স। সেখানে দেশের একদল জিনিয়াসের মিলন মেলা হলেও তারা বেশি দিন একসঙ্গে চলতে পারেননি, ভেঙে গেলো সেটি। ভঙ্গুর অবস্থাই জাতীয় প্রেসক্লাবে জেড ফোর্স এর প্রোগ্রাম চলছে,মূলত ২১ শে ফেব্রুয়ারী শহীদ মিনার কর্মসূচি দিয়ে জেড ফোর্স এর অফলাইন কর্মসূচীর সূচনা, কয়েকটি দাবীতে রেগুলার অবস্থান কর্মসূচি।
সেখানে প্রতিদিনই যেতাম তখন খুব ভয়াবহ অবস্থা বিরাজমান, গুম খুনের উৎসব বলা চলে , আমরা যারা জাতীয়তাবাদী সহযোদ্ধা তাদের বুকে হাহাকার, ভয় সংশয় নিয়েই কাজ চালাতে হচ্ছে, কেউ কারও সাথে দেখা করার সাহস পাইনা,
বিভিন্ন এজেন্সির বাড়াবাড়ি কড়াকড়ি তো পিছে লেগেই আছে।
এমনই এক সময় (ফেসবুক নাম- ব্লাক ফাইটার) Sameer Rayhan জাতীয় প্রেসক্লাবে আমার সাথে দেখা করে বললো আরেকটি প্লাটফর্ম হচ্ছে ওয়েলকাম,
আমি বললাম পরে জানাব।
দু’দিন পর আবারও ব্লাক ফাইটার Rayhan Abdullah এলো বললো ভাই কয়েকজন শিক্ষিত ও ভালো জাতীয়তাবাদী সহ আমরা শুরু করে দিয়েছি, নাম বললো ফাইজাল এস খান, বাতেন ( বটতলার উকিল) ,আমি বিদ্রোহী ( সাজিন), Kawsar Mahmud Raiyan মির্জা সাব সহ বেশ ক’জন। সেদিন ফাইজাল খান এর সাথে কথা বললাম ফোনে ভদ্র লোককে খুব বিনয়ী ও কৌশলী মনে হলো। তাকে বললাম ওকে জয়েন করব ইনশাআল্লাহ। কাজকর্ম চলতে থাকলো।Rezwanul Haque Shovan ভাই রীতিমতো উপদেষ্টার ভূমিকায় তখন।
সেই সময়ে অনেকেই ছিলেন অনেকের নাম আমার মনে পরে যাদের অবদান অনস্বীকার্য Nur Alam ভাই ( বর্তমান সভাপতি কেন্দ্রীয় কমিটি জিসাফো ) , চিন্তিত ফায়েজ ভাই,আশিকুল রহমান, Mohammad Alfaz Dewan , Siddique Md Belal Hossain মুসা ভাই, বাতেন , Dipa Hashem, পারভেজ আহমেদ ( ব্যারিস্টার), এস এইচ সুমন, জসিম , এমদাদ হোসেন সাইফুল, মাহফুজ এভিন , নাসিরুদ্দিন শাওন, নুর মোহাম্মদ অনিক, জুল আফরোজ , Sofiq Arman , Talukdar Titas, Ashiqul Islam , আশিক আদনান, এম এ আজিজ রনি, জেবীন, মেহেদী হাসান, তুষার , রেজাউল করিম বিপু,মনিরা সুলতানা,জুল ভার্ন,শাহেদ চৌধুরী, মুক্তা উষা,এম,জে সৌরভ,ইউনূস রিংকু,সাইমুম সাব্বির,নাজিমুদ্দিন শিমুল,লন্ডন প্রবাসী মাইনুল ইসলাম,মেহদী হাসান,তুষার মিয়া,আদর,সাজিদ মাহমুদ,আতিক , সবুজ পাশা , Saraf Suman , মোঃ আবু ইউসুফ, সহ আরো অনেকে, অনেক পরে জয়েন করেছিলেন জনাব ওয়াহিদ উন নবী ভাই, তার অবদান ভুলে যাবার মত নয়। দেশনেত্রীর সাথে কয়েকবার সাক্ষাৎ করিয়ে দিয়েছেন জনাব ওয়াহিদ উন নবী ভাই ও বর্তমান বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক  Shohidul Islam Khan Babul ভাই, বাবুল ভাই সবসময়ই সব বিষয়ে আদেশ উপদেশ দিয়ে আসছেন এখন পর্যন্ত বটবৃক্ষের মত ছায়া হয়ে রয়েছে ।

বাতেন (বটতলার উকিল) জিসাফো কে শুরুতে এগিয়ে নিতে বিশেষ অবদান রেখেছেন।জিয়া সাইবার ফোর্স এর জন্য আরও যারা গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন তারা হলেন-ফাইজাল এস খান ও কে এম হারুন।
প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে এখন অবদী আছেন অনেক নেতৃবৃন্দ, অনেকেই চলে গিয়েছেন নানান কারনে।
জিয়া সাইবার ফোর্স – জিসাফো আজ দেশের সর্ববৃহৎ ও অন্যতম জাতীয়তাবাদী অনলাইন সংগঠন, দেশের বিভিন্ন দুর্যোগে বিপদগ্রস্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানো সহ দলীয় সকল কর্মসূচিতে রাজপথে থেকেছে এই সংগঠন। জেল জুলুম, নির্যাতনের শিকার হয়েছে এই সংগঠন এর অসংখ্য কর্মী,
দলের সকল ইতিবাচক প্রচার প্রচারণা, শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের জীবন কর্ম প্রচারণা, ফ্যাসিবাদ এর দুঃশাসন, নিপীড়ন, নির্যাতন ও লুটপাট বিরোধী প্রচারণা করে মিডিয়ার ঘাটতি পূরনের ক্ষুদ্র চেষ্টায়রত আছে অবিরত।
অসংখ্য নিবেদিত প্রান জাতীয়তাবাদীর সমন্বয়ে এই সংগঠনটি নানান প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে সারাদেশে আদর্শের ভীত মজবুত করতে ,দেশনেত্রীর মুক্তির দাবীতে রাজপথে কর্মসূচি সহ, বিভিন্ন অফলাইন প্রোগ্রাম এবং জেলা , মহানগর, উপজেলা কমিটি সহ
প্রশিক্ষিত কর্মী তৈরী করতে নানামুখি পদক্ষেপ গ্রহণ করে চলছে ইনশাআল্লাহ।
দলকে বিভিন্ন ভাবে, নিঃস্বার্থ সাপোর্ট দেওয়াই মূল লক্ষ্য, একজন নিবেদিত প্রান দলের কর্মী রাজপথের পাশাপাশি সোশাল মিডিয়ায় সমানভাবে ভূমিকা রাখতে পারলে আলাদা কোনো মিডিয়ার খুব একটা প্রয়োজন হবেনা ইনশাআল্লাহ, এটাই আমাদের বিশ্বাস, একজন সত্যিকারের কর্মী হলুদ সাংবাদিকদের মত কখনোই বিক্রি হয়না বা স্বৈরাচারী চোখ রাঙ্গানীতে ভীতুও হবেনা ইনশাআল্লাহ। এই সংগঠন সবসময় একক কর্তৃত্ববাদ ও স্বেচ্ছাচারীতাকে শক্ত হাতে প্রতিরোধ করে এগিয়ে যাচ্ছে ইনশাআল্লাহ
এটি একটি গনতান্ত্রিক ও সকল দেশপ্রেমিক জাতীয়তাবাদীর সংগঠন, সংখ্যা গরিষ্ঠ মতামত এর বাইরে কারও কোনো একক সিদ্ধান্ত এই সংগঠনে কখনোই প্রশ্রয় পায়নি, কেউ চাপিয়ে দেবার চেষ্টা করলেও সর্বস্তরের নেতৃবৃন্দের ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধে টিকে থাকতে পারেনি।
সকল লোভ লালসার উর্ধ্বে উঠে, ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে, ইউনিটি ও ডিসিপ্লিনের উপর টিকে আছে এবং থাকবে ইনশাআল্লাহ।
বাংলাদেশ জিন্দাবাদ
শহীদ জিয়া অমর হোক
খালেদা জিয়া জিন্দাবাদ
তারেক রহমান জিন্দাবাদ
বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল জিন্দাবাদ
জিয়া সাইবার ফোর্স জিন্দাবাদ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
©ziacyberforce.com
themesba-lates1749691102