বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ০৪:০০ অপরাহ্ন

বিএনপি কাদের উপর ভরসা করেবে দলের ভিতরই বিশ্বাস ঘাতক!

Coder Boss
  • Update Time : শুক্রবার, ১৯ মে, ২০২৩
  • ১৭৫ Time View

পাঁচটি সিটি করপোরেশন নির্বাচনের মধ্যে শুধুমাত্র একটির বেইমান ও বিশ্বাসঘাতকের তালিকা দিয়েছেন বিএনপি। বাকি চার সিটির বেইমান ও বিশ্বাসঘাতকের তালিকাও নাকি প্রস্তুত হচ্ছে। ধারাবাহিকভাবে তাদের নামও আমরা জানতে পারবো। তবে প্রশ্ন রইলো, একটি সিটি করপোরেশন নির্বাচনেই যদি ২৯ জন পদধারী সিনিয়র নেতা দলের নির্দেশ অমান্য করে তাহলে তাদের থাকেটা কি? বিএনপি কাদের ওপর ভরসা করে তৃণমূলে এগিয়ে যাবে? এ অবস্থায় আরেকটি বিষয় সামনে এলো আর তা হলো- বিএনপিকে এখন দুই পক্ষের সঙ্গে লড়াই করতে হচ্ছে। সরকারি দল আওয়ামী লীগ ও নিজ দলের বেইমানদের সঙ্গে। আবার মাঠের আন্দোলনও ঠিক রাখতে হচ্ছে।
আলামত ভালো নয়। চারদিকে গুমোট অবস্থা। ঝড়-বৃৃষ্টি আসার আগে আকাশ যেমন অন্য রং ধারণ করে। ভ্যাপসা গরম ছাড়ে মাটি। গাছপালা সব নীরব নিথর হয়ে যায়।

ঠিক তেমনই অবস্থা এখন দেশের। যেন বড় কোনো ঝড়ের পূর্বাভাস। আসলেই কি ভয়াবহ ঝড় আঘাত হানবে। নাকি আলতো করে ছুঁয়ে যাবে? যেমন ক’দিন আগে ঘূর্ণিঝড় মোখা’র মতো। এই মোখা নিয়ে আতঙ্ক ছিল দেশজুড়ে। আবহাওয়া দপ্তর আগে থেকেই জানান দিয়ে রেখেছে ঝড়ের তীব্র আঘাতের কথা। উপকূলের মানুষজনকে আগে থেকেই সরিয়ে নেয়া হয় আশ্রয়কেন্দ্রে। সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোর ছুটি বাতিল করা হয়। কিন্তু আঘাত হানার দিন হঠাৎ করে ঘূর্ণিঝড় মোখা মিয়ানমারমুখী হয়। মিয়ানমারে আঘাত হানার আগে বাংলাদেশ পেরুবার সময় সেন্টমার্টিন ও টেকনাফে ঝড়ের গতি বেড়ে যায়। এতটুকুই। কিন্তু যদি বাংলাদেশে আঘাত করতো ঘূর্ণিঝড় মোখা তাহলে ক্ষয়ক্ষতি কি হতো, তা ছিল কল্পনাতীত। ১৯৯১ সালের এমন ঘূর্ণিঝড়ে লক্ষাধিক মানুষের মৃত্যু এখনো মানুষকে কাঁদায়। স্মরণকালের ভয়াবহ সেই ঘূর্ণিঝড়ের স্মৃতি আজও বয়ে বেড়াচ্ছে বহু মানুষ। অথচ ’৯১ সালের ঘূর্ণিঝড়ের চেয়েও ভয়াবহ ছিল মোখা। ভাগ্য সুপ্রসন্ন বাংলাদেশের। রক্ষা পেয়েছে। তবে, রাজনীতির আকাশে এখন ঘুরছে মোখা’র মতো এক ঝড়। সেই ঝড়ের আলামত স্পষ্ট। বড় দুটি দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি দুটি দল দুই মেরুতে অবস্থান করছে। পাশাপাশি দুই দলেরই প্রভাবশালী নেতারা ঝড়ের ইঙ্গিত দিচ্ছেন। প্রচ্ছন্ন হুমকি দিচ্ছেন। কোনো প্রকারেই কেউ কাউকে ছাড়বে না। যার যার অবস্থানে অটল থাকার কথা প্রতিদিনই জানান দিচ্ছেন। নির্বাচনকালীন সরকার ব্যবস্থা কেমন হবে? এ বিষয়টি নিয়ে তারা এখন মুখোমুখি। বিএনপিসহ মাঠের সমমনা দলগুলো তাদের দাবি আদায়ে একের পর এক কর্মসূচি দিয়ে যাচ্ছে। সামনে কঠিন কর্মসূচি দেয়ার হুমকি দিয়ে রাখছে তারা। এমনকি ১০ দফা থেকে এখন তারা এক দফা দাবি নিয়ে এগুতে চাইছে। নতুন কর্মসূচি হিসেবে জেলায় জেলায় বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দেয়া হয়েছে। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের শান্তি সমাবেশ তো চলমান আছেই। তারপরও তাদের সম্পাদকমণ্ডলীর সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে কঠোরভাবে শান্তি সমাবেশগুলো পালন করতে। বিরোধী দল যেন কোনোভাবেই বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে না পারে সেদিকে নজর রাখার কথাও বলা হয়েছে সম্পাদকমণ্ডলীর সভায়। আওয়ামী লীগ আগামী নির্বাচন নিয়ে তাদের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিয়েছে।

সংবিধান অনুযায়ী তারা নির্বাচন করবে। সাম্প্রতিক সময়ে বলা হয়েছে, সংবিধান অনুযায়ী যে অন্তর্বর্তী সরকার গঠন করা হবে- সেখানে বিএনপি’র ঠাঁই হবে না। জাতীয় পার্টি সরকারে জায়গা পাবে। কারণ সংসদে এখন আর বিএনপি নেই। অন্যদিকে বিএনপি তো এ সরকারের অধীনে নির্বাচনেই যাবে না। তারা চায় সংসদ ভেঙে সরকারের পদত্যাগ। এরপর তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠন। যে সরকারের অধীনে আগামী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। যে নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে পারবে। জনগণের ভোটে যারা জয়ী হবেন তারাই সরকার গঠন করবে। মূলত এ নিয়েই হবে নির্বাচনের আগ মুহূর্তে লড়াই। যে লড়াইয়ের উত্তাপ ছড়াবে সর্বত্র। এখানেই আতঙ্ক। কী হবে শেষ মুহূর্তে। সরকার কি তাদের চিন্তায় সফল হবে? নাকি বিএনপি সফল হবে। সফল তো পরের কথা। আগে মুখোমুখি অবস্থানে থেকে দু’টি পক্ষ যে ঝড়ের পূর্বাভাস দিচ্ছে তা যদি মোখা’র মতো গতিপথ পরিবর্তন না করে তাহলে সবকিছু তছনছ করে দেবে হয়তো। আর যদি গতিপথ পরিবর্তন করে তাহলে হালকার উপর দিয়ে বয়ে যাবে। শেষ পরিণতি এমন হলে কিছুটা হলেও রক্ষা পাবে দেশের মানুষ।

বর্তমানে দেশের পাঁচ সিটি করপোরেশনে নির্বাচন হচ্ছে। এ নির্বাচনেও বিএনপি নেই। বিএনপি’র স্পষ্ট ঘোষণা এ সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচনেই তারা যাবে না। তারপরও যদি কেউ যায় তাহলে তাদের বহিষ্কার করা হবে। ইতিমধ্যে মঙ্গলবার গাজীপুর সিটি নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ায় বিএনপি’র ২৯ নেতাকে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করেছে বিএনপি। এ ঘটনায় প্রমাণ হয়, বিএনপি হার্ডলাইনে আছে। তাদের অপরাধ দলীয় নির্দেশনা অমান্য করে গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে তারা। বিএনপি এই ২৯ জনের নামে পৃথকভাবে বহিষ্কারের চিঠি পাঠিয়েছে। বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত চিঠিতে বক্তব্যও খুবই কঠিন। চিঠিতে বলা হয়, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের প্রহসনের নির্বাচনে কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে আপনি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার জন্য আপনাকে গত ১১ই মে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়। কিন্তু নির্ধারিত সময় অতিক্রান্ত হলেও আপনি কারণ দর্শানো নোটিশের জবাব দেননি যা গুরুতর অসদাচরণ।

নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার না করে গত ১৫ বছর ধরে চলমান গণতান্ত্রিক আন্দোলনে অত্যাচারী শাসকগোষ্ঠীর দ্বারা যারা গুম-খুন ও পৈশাচিক নিপীড়নের শিকার হয়েছেন তাদের পরিবারসহ দেশের গণতন্ত্রকামী বিপুল জনগোষ্ঠীর আকাক্সক্ষার প্রতি আপনি বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন। দলীয় সিদ্ধান্ত ও নির্দেশনাকে এহেন অবজ্ঞা ও ঔদ্ধত্যের জন্য বিএনপি’র গঠনতন্ত্রের বিধান অনুযায়ী দলের প্রাথমিক সদস্য পদসহ সব পর্যায়ের পদ থেকে নির্দেশক্রমে আপনাকে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করা হলো। গণতন্ত্র উদ্ধারের ইতিহাসে আপনার নাম একজন বেইমান, বিশ্বাসঘাতক ও মীরজাফর হিসেবে উচ্চারিত হবে।

এবার দেখা যাক- বেইমান ও বিশ্বাসঘাতকের তালিকায় কারা আছেন? এক নম্বরেই রয়েছেন, গাজীপুর সদর মেট্রো থানা বিএনপি’র আহ্বায়ক হাসান আজমল ভূঁইয়া। এরপর ধারাবাহিকভাবে রয়েছেন গাজীপুর সদর মেট্রো থানা বিএনপি’র সাবেক আহ্বায়ক হান্নান মিয়া হানু, বাসন মেট্রো থানা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক মোছলেম উদ্দিন মুসা চৌধুরী, টঙ্গী পূর্ব থানা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক সফিউদ্দিন আহমেদ, গাজীপুর মহানগর শ্রমিকদলের আহ্বায়ক ফয়সাল সরকার, পুবাইল মেট্রো থানা বিএনপি’র সদস্য সচিব এডভোকেট নজরুল ইসলাম ভিকি, একই থানা বিএনপি’র সাবেক আহ্বায়ক সুলতান উদ্দিন চেয়ারম্যান, সদর মেট্রো থানা বিএনপি’র সভাপতি মজিবর সরকার, সদর মেট্রো থানা বিএনপি’র সদস্য মাহবুবুর রশিদ খান শিপু, একই থানা বিএনপি’র সদস্য সবদের আহমেদ, খায়রুল আলম, জিএস মনির, শহিদ, মো. তানভির আহমেদ, শাহিন আলম, আনোয়ার সরকার, রফিকুল ইসলাম রাতা, গাজীপুর মহানগর বিএনপি’র সদস্য আবুল হাশেম, টঙ্গী পশ্চিম থানা বিএনপি’র সদস্য সেলিম হোসেন, গাজীপুর মহানগর বিএনপি’র সাবেক সদস্য ফারুক হোসেন খান, গাজীপুর মহানগর মহিলা দলের সিনিয়র সহ-সভাপতি খন্দকার নুরুন্নাহার, গাজীপুর মহানগর মহিলা দলের সহ-সভাপতি কেয়া শারমিন, গাজীপুর মহানগর মহিলা দলের সদস্য ফিরোজা বেগম, টঙ্গী পূর্ব থানা মহিলা দলের সিনিয়র সহ-সভাপতি হাসিনা মমতাজ, ১১ নং ওয়ার্ড বিএনপি’র সাবেক সভাপতি এডভোকেট আলম, ৩৭ নং ওয়ার্ড বিএনপি’র সভাপতি আউয়াল সরকার, গাছা থানা বিএনপি’র সাবেক যুগ্ম সম্পাদক মো. মাহফুজুর রহমান, ৪৯ নং ওয়ার্ড বিএনপি’র যুব বিষয়ক সম্পাদক মোবারক হোসেন মিলন ও টঙ্গী পশ্চিম থানা যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক ইঞ্জিনিয়ার মনিরুজ্জামান। তারা প্রত্যেকেই দলের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে কাউন্সিলর নির্বাচন করছেন।

এত গেল পাঁচটি সিটি করপোরেশন নির্বাচনের মধ্যে শুধুমাত্র একটির বেইমান ও বিশ্বাসঘাতকের তালিকা। বাকি চার সিটির বেইমান ও বিশ্বাসঘাতকের তালিকাও নাকি প্রস্তুত হচ্ছে। ধারাবাহিকভাবে তাদের নামও আমরা জানতে পারবো। তবে প্রশ্ন রইলো, একটি সিটি করপোরেশন নির্বাচনেই যদি ২৯ জন পদধারী সিনিয়র নেতা দলের নির্দেশ অমান্য করে তাহলে তাদের থাকেটা কি? বিএনপি কাদের ওপর ভরসা করে তৃণমূলে এগিয়ে যাবে? এ অবস্থায় আরেকটি বিষয় সামনে এলো আর তা হলো- বিএনপিকে এখন দুই পক্ষের সঙ্গে লড়াই করতে হচ্ছে। সরকারি দল আওয়ামী লীগ ও নিজ দলের বেইমানদের সঙ্গে। আবার মাঠের আন্দোলনও ঠিক রাখতে হচ্ছে। সমমনাদের সঙ্গেও তাল মিলিয়ে চলতে হচ্ছে। এতদিক সামলিয়ে বিএনপি কতোটুকু এগুতে পারবে? এ জন্যই হয়তো আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জোর দিয়ে বলেন, বিএনপি কিছুই করতে পারবে না। তারা আন্দোলনে ব্যর্থ। জনগণ তাদের সঙ্গে নেই। যদিও বিএনপি ওবায়দুল কাদেরের এ বক্তব্যের কড়া জবাব সব সময়ই দিয়ে আসছে। এই জবাব আর পাল্টা জবাবেই সামনে আসে ঝড়ের শঙ্কা। এখন দেখার বিষয় মোখা’র মতো কে গতিপথ পরিবর্তন করে। আওয়ামী লীগ না বিএনপি?

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
©ziacyberforce.com
themesba-lates1749691102