৫ পরিবারকে গ্রামছাড়া করেছেন আ’লীগ নেতা

0

কে এম সাদ্দামঃ টাঙ্গাইলের গোপালপুরে এক আওয়ামী লীগ নেতার বিরুদ্ধে পাঁচটি পরিবারের ৪০ জন সদস্যকে গ্রামছাড়া করার অভিযোগ উঠেছে। এছাড়া ওই পরিবারগুলোর বাড়িঘর ও দোকানপাটও ভাংচুর করা হয়েছে বলে জানান তারা। সোমবার দুপুরে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন নির্যাতিত লোকজন। তারা এই ঘটনার সুষ্ঠু বিচার ও তাদের নিরাপত্তা দাবি করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নির্যাতিত মোতালেব সওদাগর। এ সময় নির্যাতিত অন্যরাও উপস্থিত ছিলেন। এতে অভিযোগ করা হয়, গোপালপুরের নগদাশিমলা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পাথালিয়া গ্রামের বাবুল সওদাগরের ছেলে হাসান সওদাগর বিয়ে করে তার স্ত্রীকে বাড়িতে রেখে জাপান যান। এদিকে একই এলাকার রহমান সওদাগরের ছেলে মানিক সওদাগরের সাথে হাসানের স্ত্রীর পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। গত ৯ সেপ্টেম্বর এলাকাবাসী মানিকের সাথে হাসানের স্ত্রীর বিয়ে করিয়ে দেন। ছেলের বৌয়ের সাথে প্রেম ও বিয়ের বিষয়টি মেনে নিতে পারেননি আওয়ামী লীগ নেতা বাবুল সওদাগর। তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে তার লোকজন নিয়ে ১৪ সেপ্টেম্বর মানিক সওদাগরের বাড়িসহ তার স্বজনদের পাঁচটি বাড়ি ও দুটি দোকান ভাংচুর করে তাদের গ্রাম থেকে তাড়িয়ে দেন। সংবাদ সম্মেলনে আরো অভিযোগ করা হয়, এই পাঁচ পরিবারের অন্তত ৪০ জন মানুষ বর্তমানে টাঙ্গাইল ও জামালপুরে তাদের আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে অবস্থান করছেন। প্রাণভয়ে তারা এখন নিজেদের ঠিকানায় ফিরতে পারছেন না। তাদের অভিযোগ, গোপালপুর থানায় মামলা করতে গেলেও পুলিশ মামলা না নিয়ে আলোচনার মাধ্যমে মীমাংসার কথা বলেছে। এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগ নেতা বাবুল সওদাগরের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, মোতালেবরাই প্রথমে হামলা করে দুটি বাড়ি ভাংচুর করে। পরে এলাকাবাসী ক্ষিপ্ত হয়ে তাদের বাড়িঘরে হামলা চালায়।