৫ জানুয়ারির তামাশার নির্বাচনের পর গণতন্ত্র এখন মৃতপ্রায়;বেগম জিয়া

0

জিসাফো ডেস্কঃ বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া বলেছেন, আজ দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব হুমকির মুখে। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির তামাশার নির্বাচনের পর গণতন্ত্র এখন মৃতপ্রায়।

বিএনপির ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মী, শুভানুধ্যায়ী এবং দেশবাসীকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে বৃহস্পতিবার দেয়া এক বাণীতে তিনি একথা বলেন।

খালেদা জিয়া বলেন, দেশবিরোধী নানা চুক্তি ও কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে বর্তমান সরকার জাতীয় স্বার্থকে জলাঞ্জলি দিয়ে চলেছে। দেশে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে। দেশব্যাপী পথে-ঘাটে শুধু লাশের মিছিল। বিদ্যুৎ-গ্যাস-পানি নিয়ে হাহাকার চারদিকে।

বিএনপি প্রধান বলেন, দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্ধ্বগতিতে সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে। দেশজুড়ে গণহত্যা, গুম, গুপ্তহত্যা, নারী ও শিশুদের ওপর পৈশাচিকতা, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি, দুর্নীতি, নিপীড়ন ও নির্যাতনের মহোৎসব চলছে।

তিনি বলেন, ঈদুল আযহার প্রাক্কালে একের পর এক বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের গুম হওয়ায় চারিদিকে ভয় ও আতঙ্ক পরিব্যাপ্ত হয়েছে। দেশে এক শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতি বিরাজমান।

বিএনপির ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আজকের এদিনটিকে স্মরণ করে বিএনপি চেয়ারপার্সন বলেন, আজকের দিনটি আমাদের সবার জন্য আনন্দ ও প্রেরণার। ১৯৭৮ সালের পহেলা সেপ্টেম্বর এ দিনে মহান স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বিএনপি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।

তিনি বলেন, বাকশালী একদলীয় দুঃশাসনের কারণে যে রাজনৈতিক শূন্যতা সৃষ্টি হয়েছিল- তা পূরণ করতে দেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র পনঃপ্রবর্তন করেন। এরই ধারাবাহিকতায় রাজনৈতিক দল হিসেবে বিএনপি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। শহীদ জিয়াউর রহমানের হাতে গড়া বিএনপি দেশ ও জনগণের সমৃদ্ধি এবং কল্যাণে কাজ করছে।

খালেদা জিয়া বলেন, বাংলাদেশে গণতন্ত্রকে শক্তিশালী ও প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়ার লক্ষ্যে বিএনপি ১৯৯১ সালে নির্বাচিত হয়ে রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পালনকালে সাংবিধানিক সংশোধনীর মাধ্যমে সংসদীয় গণতন্ত্র পুনঃপ্রবর্তন করেছে।

দেশবাসীসহ বিশ্বের মুসলমানদের ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়ে অপর এক বাণীতে খালেদা জিয়া বলেন, স্বার্থপরতা পরিহার করে মানবতার কল্যাণে নিজেকে উৎসর্গ করা কোরবানির প্রধান শিক্ষা।

তিনি বলেন, হিংসা-বিদ্বেষ, লোভ-ক্রোধকে পরিহার করে সমাজে শান্তি ও সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠায় আত্মনিবেদিত হওয়া আমাদের কর্তব্য।

বিএনপি চেয়ারপার্সন আরও বলেন, কোরবানির যে মূল শিক্ষা তা ব্যক্তি জীবনে প্রতিফলিত করে মানব কল্যাণে ব্রতী হওয়ার মাধ্যমে মহান আল্লাহ রাব্বুল আল-আমিনের সন্তুষ্টি ও নৈকট্য লাভ সম্ভব। বিশ্বাসী হিসেবে সে চেষ্টায় নিমগ্ন থাকা প্রতিটি মুসলমানের কর্তব্য।

দেশের চলমান পরিস্থিতি তুলে ধরে তিনি বলেন, দেশে এক ভয়ংকর নৈরাজ্য চলছে। মানুষের জান, সহায়-সম্পদের কোনো নিরাপত্তা নেই। ঈদের আগে বেশ কয়েকটি গুমের ঘটনায় আমি গভীরভাবে উদ্বিগ্ন।

সাবেক এ প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের বর্তমান অবস্থায় সব পক্ষে ঈদের আনন্দ যথাযথভারে উপভোগ করা সম্ভব হবে না। নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন উর্ধ্বগতি দরিদ্র ও কম আয়ের মানুষকে চরম দুর্ভোগের মুখে ঠেলে দিয়েছে।

তিনি বলেন, মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্তের মানুষ আরও বিপন্ন হয়ে পড়বে। বন্যা-পাহাড় ধসের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগে অনেকেই স্বজন হারিয়েছেন। ঘরবাড়ি ফসল বানের পানিতে ভেসে গেছে। এখনও শূন্য ভিটায় ঠাঁই করতে পারেনি হাজারো মানুষ।

বিএনপি প্রধান বলেন, আমি বিএনপি নেতাকর্মীসহ দেশের বিত্তবানদের আহ্বান জানাই-এসব অসহায় মানুষের দিকে সাহায্য ও সহমর্মিতার হাত প্রসারিত করার জন্য।

ঈদের আনন্দের দিনে কেউ যাতে অভুক্ত না থাকে, সেদিকে আমাদের সবাইকে খেয়াল রাখতে হবে। ঈদের আনন্দকে ভাগ করে নিতে হবে এক কাতারে মিলে, বলেন খালেদা জিয়া।