হত্যা মামলার এক নাম্বার ওয়ারেন্ট ভুক্ত আসামী পেলেন নৌকার টিকেট

0

ডেস্ক রিপোর্ট : ময়মনসিংহের গফরগাঁও পৌর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ইবনে আজাদ কমলকে হত্যার ঘটনায় ছাত্রলীগের তিন নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে ১০.০৯.২০১৪ তারিখে গফরগাঁও থানায় মামলা করেন নিহতের মা।গফরগাঁও সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম-সম্পাদক আবির আহম্মেদ সাহাবুল, ছাত্রলীগ নেতা বিল্পব ও রাফসানকে আসামি করে তিনি মামলাটি করেন।

13140712_1032433976844229_645406524_n

উল্লেখ্য, পৌর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ইবনে আজাদ কমল গত ০৬.০৯.২০১৪ তারিখ শনিবার দুপুর আড়াইটার দিকে গফরগাঁও পৌর শহরের জামতলা মোড়ে পৌর ছাত্রদলের নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ইবনে আজাদ কমল চায়ের দোকানে বসে গল্প করছিলেন। এ সময় ছাত্রলীগ নেতা আবির আহম্মেদ সাহাবুলের নেতৃত্বে অস্ত্রধারী কর্মীরা তার উপর হামলা চালায়।

এ সময় ছাত্রদল নেতা কমল দৌঁড়ে পালানোর চেষ্টা করলে ছাত্রলীগের কর্মীরা তাকে ধাওয়া করে মেক্সি স্ট্যান্ড এলাকায় ঘিরে ফেলে। পরে কমলকে বেধড়ক পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে ছাত্রলীগ কর্মীরা। স্থানীয়রা উদ্ধার করে ছাত্রদল নেতা কমলকে প্রথমে গফরগাঁও এবং পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে ০৭.০৯.২০১৪ তারিখ রবিবার দুপুরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় কমল মারা যায়।

13153360_1032434000177560_1398354400_n

কমল হত্যা মামলার প্রধান আসামী ছাত্রলীগ ক্যাডার সাহাবুল দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর গত ডিসেম্বর মাসে আওয়ামীলীগের বিজয় মিছিলে ব্যপক শোডাউনের মাধ্যমে আত্ত্বপ্রকাশ করে। এরপর থেকে সে স্থানীয় এমপি ফাহমী গোলন্দাজ বাবেলের প্রতিটা সমাবেশে ব্যপক ভূমিকা রাখে। ইউনিয়ন নির্বাচনের ডামাঢোলে সে নিজেকে ৬ নং রাওনা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থি হিসাবে ঘোষনা করে এবং এমপির সহযোগীতায় সে নৌকার টিকেট পায়। এতে করে স্থানীয় আওয়ামীলীগে ব্যপক অসন্তোস ও হতাশা ছরিয়ে পরেছে।অনেক ত্যাগি,প্রবীন নেতাকে বাদ দিয়ে সাহাবুলের মতো একজন সন্ত্রাসী কে মনোনয়ন দেয়ায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন অনেকেই।

এছারাও ৭ নং মশাখালী ইউনিয়নে উপজেলা মুক্তিযুদ্ধা কমান্ডার ও বর্তমান জনপ্রিয় চেয়ারম্যান সলিমকে বাদ দিয়ে শিল্পপতি মুস্তফা মনিকে মনোনয়ন দেয়ায় মুক্তিযুদ্ধা কমান্ডও ক্ষোভ প্রকাশ করেন।৩ নং চর আলগী ইউনিয়নে বর্তমান জনপ্রিয় চেয়ারম্যান মাইনুদ্দিন, সাবেক চেয়ারম্যান মনছুর, সাবেক চেয়ারম্যান দুলাল আকন্দকে বাদ দিয়ে ডলার ব্যবসায়ী ও নব্য আওয়ামিলীগার মাসুদ মনোনয়ন পাওয়ায় ব্যপক অসন্তোষ দেখা দিয়েছে।প্রচলিত আছে,প্রতিটি মনোনয়নে ৩০ থেকে ৬০ লক্ষ টাকার লেনদেন হয়েছে।