‘সরকারের দুর্নীতিবাজদের মুক্তির সার্টিফিকেট দিচ্ছে দুদক’-বগুড়াতে রিজভী

0

জিসাফো ডেস্কঃ দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) দুমুখো সাপ হিসেবে আখ্যায়িত করে বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহম্মেদ বলেছেন, এই প্রতিষ্ঠানটি একমুখে বিএনপিকে দংশন করছে, আরেক মুখে সরকারের পা চাটছে। সরকারের নিজেদের লোকজন দিয়ে গড়ে তোলা এই প্রতিষ্ঠানটি সরকার দলীয় দুর্নীতিবাজদের সালফিউরিক এসিড দিয়ে পরিস্কার করে দুর্নীতি মুক্তির সার্টিফিকেট দিচ্ছে।

শুক্রবার দুপুরে বগুড়া জেলা বিএনপি কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে উপরোক্ত এসব কথা বলেন তিনি।

‘বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সম্পদের অনুসন্ধান করবে দুদক’ এমন ঘোষণার প্রতিবাদে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

ঢাকা থেকে কুড়িগ্রাম যাওয়ার পথে বগুড়ায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে রুহুল কবির রিজভী আহম্মেদ আরো বলেন, মঈন উদ্দিন-ফখরুদ্দিনের সরকার তারেক রহমানের দুর্নীতি খুঁজে পায়নি। আওয়ামী লীগ সরকার তাদের ৫ বছর মেয়াদেও তারেক রহমানের অবৈধ কোন সম্পদের খোঁজ পায়নি। এমনকি ভোটারবিহীন নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতা দখলের দুই বছরেও তারেক রহমানের দুর্নীতি পাওয়া যায়নি। কিন্তু হঠাৎ করে সরকারের আজ্ঞাবহ প্রতিষ্ঠান দুদক তারেক রহমানের সম্পদের অনুসন্ধানের ঘোষণা দিল।

এর পেছনের কারণ হিসেবে তিনি বলেন, গত ৫ জানুয়ারি ঢাকায় বিএনপির জনসভায় জাতীয়তাবাদী জোয়ার দেখে সরকার দিশেহারা হয়ে পড়েছে। আর একারণেই সরকারের পা চাটা প্রতিষ্ঠান দুদক তারেক রহমানের সম্পদের অনুসন্ধানের ঘোষণা দিয়েছে।

দুদক সরকারের কৃতদাস হিসেবে কাজ করছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের সাড়ে ৭ হাজার নেতাকর্মীর মামলা নিষ্পত্তি করা হয়েছে। সেখানে কারো সাজা দেয়া হয়নি। অন্যদিকে, বিএনপির নেতাদের হয়রানী করতে শুধু নাশকতার মামলাই নয় এখন দুদকও মামলা দিচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তিনি দুদকের এই ঘোষণা তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।

সংবাদ সম্মেলনে জেলা বিএনপির সভাপতি ভিপি সাইফুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন চাঁনসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।