‘শরমে’ হাসিনার ইলিশ খাননি মমতা

0

‘কাকা’ প্রণব ও ‘বোন’ মমতার জন্য শেখ হাসিনা নিজ হাতেই রান্না করেছিলেন ভাপা ইলিশ। কিন্তু ‘কাকাবাবু’ খেলেও খেলেন না মমতা।

তিস্তার জল দিতে বরাবরই আপত্তি জানিয়ে আসছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শেখ হাসিনার এবারের সফরেও তারই আপত্তির কারণে তিস্তা চুক্তি হলো না। এবারের সফরেও মুখের ওপর না করে দিয়েছেন মমতা। আন্তঃনদীর পানিরে ভাগ দিচ্ছেন না তিনি। বাংলাদেশ থেকে নেয়া ইলিশ খাবেন ‘কোন মুখে’। তাই হয়তো ‘শরমে’ ‘দিদি’ শেখ হাসিনার নিজ হাতে রান্না করা ভাপা ইলিশ না খেয়েই চলে যান মমতা।ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়কে কাকার মতোই শ্রদ্ধা করেন শেখ হাসিনা। প্রণবের বাঙালি স্ত্রীর সঙ্গেও তার মধুর সম্পর্ক ছিল।

এবারের ভারত সফরে ‘কাকার’ রাষ্ট্রপতি ভবনেই অতিথি হিসেবে উঠেছেন হাসিনা। সেখানেই নৈশভোজের আয়োজন করা হয়।

‘কাকাবাবুর’ বাসভবনে উঠেছেন, তাই তাকে রান্না করে খাওয়ানোর সাধ হলো শেখ হাসিনার। সেজন্য ঢাকা থেকে নিয়ে গেছেন ছয়জন পাকা রাঁধুনি। তারা রেঁধেছেন ইলিশের তিন রকমের পদ। ভাপা ইলিশ রান্নায় নিজেই হাত লাগান হাসিনা। ‘কাকা’ যে খেতে বড় ভালবাসেন।

অবশ্য ‘কাকাকে’ খাওয়াতে পারলেও ‘বোন’ মমতার ইলিশ খাওয়া হয়ে ওঠেনি। তিস্তার জল নিয়ে আপত্তির কথা জানিয়ে মুড়ি-বাতাসা খেয়েই বিদায় নেন তিনি।

দিল্লি সফরে যাওয়ার সময় পদ্মার ইলিশ নিয়ে গেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সঙ্গে ছিল মমতার জন্য জামদানি শাড়ি ও রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের জন্য ঢাকাই মসলিনের পাঞ্জাবি। সন্ধ্যায় দুজনের হাতেই উপহার তুলে দেন হাসিনা। মমতাও হাসিনার হাতে তুলে দেন রাধারমণ মল্লিকের মিষ্টি ও শাল।

কী উপহার পেলেন এ প্রশ্নে রহস্য রেখে মমতা জবাব দেন, “গিফটের কথা কেউ বলে নাকি?”

শনিবার সন্ধ্যায় রাষ্ট্রপতি ভবনে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যঅয়ের সঙ্গে বৈঠক করেন শেখ হাসিনা।

এসময় তিস্তার পানি সমস্যা মেটাতে বিকল্প প্রস্তাব দেন মমতা। তিনি বলেন, “তিস্তায় পানি নেই। অন্য নদীর পানিবণ্টনের কথা ভাবা যেতে পারে।”

এর আগেও মনমোহন সিংয়ের ঢাকার সফরের সময় তিস্তা চুক্তি চূড়ান্ত হরেও সফরের আগ মুহূর্তে মমতা বেঁকে বসেন। সেজন্য সেবার চুক্তিটি হয়ে ওঠেনি। এবার অবশ্য কেন্দ্র থেকে কোনও চাপ ছিল না মমতার ওপর। শনিবার দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে মোদির কথায় স্পষ্ট হয়ে ওঠে- কেন্দ্র রাজ্য সরকারের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে অালোচনা করেনি। মোদি বলেন, “মমতার সঙ্গে কথা বলে তিস্তা চুক্তি চূড়ান্ত করতে হবে।”