রমযানেও নগরবাসীর জন্য কোন সুখবর নেই গ্যাস বিদ্যুৎ সংকট

0

জিসাফো ডেস্কঃস্বাগত মাহে রমজান। বাংলাদেশ ও বিশ্বের মুসলমানদের দুয়ারে আবারও উপস্থিত হয়েছে রহমত, মাগফিরাত ও নাজাত লাভের বাণী নিয়ে পবিত্র রমজান। মাসব্যাপি সিয়াম সাধনার মধ্য দিয়ে মুসলমানরা এ তিন ধাপে ইবাদত-বন্দেগি করে আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণের প্রশান্তি লাভ করবে। সারাবছর জ্ঞাত-অজ্ঞাতসারে তারা যে পাপ করেছে, তা থেকে মা পাওয়ার মোম মাস হল এ রমজান। সিয়াম সাধনার দ্বারা আত্মশুদ্ধির মাধ্যমে তারা যে নাজাতের পথ খুঁজবে এতে কোন সন্দেহ নেই। হাজার রজনীর চেয়ে শ্রেষ্ঠ রজনী লাইলাতুল কদর রমজান মাসকে করেছে বিশেষভাবে মহিমান্বিত। এ রাতেই রাব্বুল আলামিন তার প্রিয় নবী হজরত মুহাম্মদের (সা.) ওপর সর্বশেষ গ্রন্থ পবিত্র কোরআন নাজিল করেন। কোরআনের শিা হল বিশ্বাসী মানুষকে ইহলৌকিক ও পারলৌকিক জীবনে অশেষ কল্যাণ দান করা। কৃচ্ছসাধন ও আত্মসংযমের এ মাসে তাই সংসারি মানুষ আল্লাহর প্রদর্শিত পথে চলার ওয়াদা করে, তার সবরকম গুণাহ্ মাফ করে দেয়ার আকুল প্রার্থনা জানায়। এ মাসে আল্লাহ তার বান্দাদের কঠোর ত্যাগ, ধৈর্য, উদারতা ও সততা প্রদর্শনের নির্দেশ দিয়েছেন।
পরিতাপের বিষয়, এ মাসেই একশ্রেণির ব্যবসায়ী সততা আর ন্যায়নীতি ভুলে অতি মুনাফা লাভের প্রতিযোগিতায় নামে। তারা রমজান মাসকে মুনাফা লুটার প্রায় হাতিয়ার করে ফেলে। যথেচ্ছভাবে দ্রব্যমূল্য বাড়ানোর এই প্রবণতা আমাদের ব্যবসায়ীদের কৃচ্ছ আর আত্মশুদ্ধির বিপরীতে নিয়ে গেছে যেন। রমজানে বিশেষ কিছু খাদ্যদ্রব্যের চাহিদা বেড়ে যায়। পাইকারি ব্যবসায়ী ও খুচরা দোকানিরা বাড়তি চাহিদাকে মুনাফা লোটার হাতিয়ার করে তোলে।সরকার দলীয় অসৎ ব্যবসায়ীরা কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করেও দ্রব্যমূল্য বাড়িয়ে দিয়েছে। রমজানের শিক্ষা অনুসরণের বদলে তারা যেন আরও সুযোগসন্ধানী ও বেপরোয়া হয়ে ওঠেছে। এবারও ক্রেতাসাধারণ দ্রব্যমূল্যের পাগলা ঘোড়ার দৌরাত্ম্য দেখতে পাচ্ছে। সরকার দ্রব্যমূল্য সাধারণ মানুষের ক্রয়মতার মধ্যে নিয়ে আসার প্রতিশ্রুতি দিলেও তা শুধু মুখের বুলি হয়ে আছে। রমজানে দ্রব্যমূল্য সহনীয় পর্যায়ে রাখতে বাজার মনিটরিং আরও জোরদার করা প্রয়োজন থাকলেও তেমন তৎপরতা নেই। সর্বসাধারণের কথা বিবেচনা করে সরকারকে এ সময়ে চাল-ডাল-চিনি-ভোজ্যতেল-ছোলা-বুটসহ প্রধান খাদ্যশস্যের দামের দিকে বিশেষভাবে দৃষ্টি রাখা জরুরী ছিল। এবার রমজানে বিদ্যুৎ নিয়ে নগরবাসীর জন্য কোন সুখবর নেই। রমজানের আগেই রাজধানীতে নতুন করে লোডশেডিং গ্যাস ও বিদ্যুৎ সংকট নিয়ে উদ্বেগ আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। নগরজীবনে অপরিহার্য উপকরণগুলোর সংকট কবে নিরসন কবে হবে কে জানে!বিদ্যুৎ সংকটের সাথে এই রমযানে গ্যাস সংকট চরম ভাবে দেখা দিয়েছে।রাজধানীর মোহাম্মদপুর,রামপুরা,উত্তরা,কামাড়পাড়া,ধউর,টংগীসহ বিভিন্ন এলাকায় গ্যাস ও বিদ্যুৎতের সংকট চরমে।এছাড়াও ঢাকায়  যানজট এবং আইনশৃংখলা পরিস্থিতিও আগের মতোই।
রমজানে একশ্রেণির মানুষ সংযম ও কৃচ্ছ্রসাধনের পরিবর্তে ভোগ-বিলাসে মেতে ওঠে। সম্পদশালীদের ভেতর চলে ইফতার পার্টির প্রতিযোগিতা। ভোগ-বিলাস ও যথেচ্ছাচার ত্যাগ করে সহজ, সুন্দর ও অনাড়ম্বর জীবনাচারে অভ্যস্ত হওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হয় পবিত্র রমজানে। সমাজের বিত্তবানদের দায়িত্ব রয়েছে গরিবদের পাশে দাঁড়ানোর। গরিব-দুঃখিদের বিপদে তাদের সহায়তা দান রমজানেরই শিা। এ মাস মুসলমানদের জন্য আত্মিক, আধ্যাত্মিক ও শারীরিক উন্নতির সুযোগ এনে দেয়। এমন এক মাসে দেশের সব মুসলমান ইসলামের শিা অনুযায়ী ত্যাগ ও কৃচ্ছসাধনের মাধ্যমে ভ্রাতৃত্ব ও শান্তির আদর্শকে সমুন্নত রাখতে সচেষ্ট হবে- এটাই আমাদের প্রত্যাশা।