মির্জা ফখরুলকে কারাগারে পাঠানো অমানবিক ও অগনতান্ত্রিক

0

জিসাফো ডেস্কঃ নাশকতার তিন মামলায় দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে জামিন না মঞ্জুর করে আদালতের পাঠানোর ঘটনাকে ‘অমানবিক’ বলছে বিএনপি।

দলের নেতারা বলেছেন, তাদের ধারণা ছিলো অসুস্থ মির্জা আলমগীর আদালত থেকে জামিন পাবেন। কিন্তু জামিন বাতিল করায় বিষয়টি ‘অমানবিক’ বলেছেন তারা। এই রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে যাবেন বলেও জানান বিএনপি নেতারা।

নাশকতার তিন মামলায় মঙ্গলবার আদালতে আত্মসমর্পণের পর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবের জামিন বাতিল করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এর প্রতিক্রিয়ায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, তিনি (মির্জা ফখরুল) অসুস্থ এবং চিকিৎসাধীন। ধারণা ছিলো, মানবিক বিষয় বিবেচনা করে একজন অসুস্থ ব্যক্তিকে আদালত জামিন দেবেন। কিন্তু জামিন বাতিল হওয়ায় বিষয়টি ‘অমানবিক’ হলো। এর বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে যাবেন বলে জানান বিএনপির এই নেতা।

দলের আরেক স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, দীর্ঘদিন কারাগরে থাকায় মির্জা ফখরুল অসুস্থ ছিলেন। বিদেশে কয়েক দফায় চিকিৎসা নিয়েছেন। এখানো চিকিৎসাধীন আছেন। এ অবস্থায় তাকে আবারো মিথ্যা মামলায় কারাগারে পাঠানো হলো। কিন্তু তার জামিন পাওয়া স্বাভাবিক ছিলো।

তিনি বলেন, ‘সরকার অতীতের মতো রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড থেকে সরিয়ে দেওয়ার জন্য তার জামিন বাতিল করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। আশা করি, সরকারের শুভ বুদ্ধির উদয় হবে এবং তার অসুস্থতার বিষয়টি অনুধাবন করে জামিনের ব্যবস্থা করবে।’

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বর্ষপূর্তিতে বিএনপির আন্দোলনের মধ্যে গত ৬ জানুয়ারি জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনের পর গ্রেফতার হন ফখরুল। এরপর নাশকতার সাত মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

এর মধ্যে পল্টন থানায় গাড়ি পোড়ানো, অগ্নিসংযোগ ও ককটেল বিস্ফোরণের মামলায় গত ১৬ এপ্রিল হাইকোর্ট থেকে ছয় মাসের জামিন পান মির্জা ফখরুল।

এরপর পল্টন থানার দুটি এবং মতিঝিল থানার এক মামলায় ১৮ জুন পুলিশ প্রতিবেদন দাখিল পর্যন্ত তাকে জামিন দেয় হাই কোর্ট। রাষ্ট্রপক্ষ আপিল বিভাগে গেলে সেখানেও ফখরুলের জামিন বহাল থাকে। আর পল্টন থানার ওই তিন মামলায় গত ২১ জুন হাইকোর্ট রুল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ফখরুলের জামিন মঞ্জুর করেন।

রাষ্ট্রপক্ষ এর বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে গেলে আদালত পাঁচ সদস্যের একটি মেডিকেল বোর্ড করে ফখরুলের স্বাস্থ্য পরীক্ষার নির্দেশ দেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রতিবেদন আদালতে দেওয়ার পর ১৩ জুলাই তিন মামলায় জামিন পান মির্জা ফখরুল।

এর পর চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুর এবং যুক্তরাষ্ট্রে যান তিনি। দেশে ফিরে আবারো দ্বিতীয় দফা সিঙ্গাপুরে চিকিৎসা শেষে সম্প্রতি দেশে ফেরেন বিএনপির এই শীর্ষ নেতা।