মানহানি মামলায় মির্জা ফখরুলের জামিন

0

ঢাকা: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে খুনি ও আওয়ামী লীগকে খুনির দল বলার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে জামিন দিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ইউনুস খান মির্জা ফখরুলের জামিন আবেদনের শুনানি শেষে ওই আদেশ দেন। এ মামলায় ফখরুলকে আদালতে হাজির হওয়ার জন্য সমন দিয়েছিল আদালত। সকাল পৌনে এগারটায় ফখরুল ঢাকার সিএমএম আদালতে হাজির হন।

গত বছরের ১ সেপ্টেম্বর আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের সহ-সভাপতি এস এম নূর-ই-আলম সিদ্দিক ঢাকা সিএমএম আদালতে এ মামলা দায়ের করেন। বাদী পক্ষে মামলাটি দায়ের করেন তার আইনজীবী অ্যাডভোকেট দুলাল মিত্র।

ওইদিন মহানগর ম্যাজিস্ট্রেট স্নিগ্ধা রানী চক্রবর্তী পল্টন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে ঘটনা তদন্ত করে প্রতিদেন দাখিলের নির্দেশ দেন।

মামলার আর্জিতে বলা হয়, গত ২৪ আগস্ট বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সাংবাদিকদেরে উদ্দেশে শেখ হাসিনাকে খুনী ও তার দল আওয়ামী লীগকে খুনীর দল বলায় এ মামলা করেন এসএম নূর-ই-আলম সিদ্দিক।

ওই সময় মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আওয়ামী লীগের সভানেত্রী নিজেই খুনী। তার দল আওয়ামী লীগ খুনির দল। শতশত তরুণ যুবকের রক্তে তার হাত রঞ্জিত। আওয়ামী লীগ সরকার আর পাক হানাদার বাহিনীর মধ্যে কোনো তফাৎ নেই।’

এমন সংবাদ পরের দিন পত্রিকায় প্রকাশ হয়। বাদী পত্রিকা পড়ে মির্জা ফখরুলের বক্তব্যে হতবাক হন।

বাদী তার মামলায় উল্লেখ করেন, এ বক্তব্যের ফলে শেখ হাসিনার মানসম্মান মারাত্মকভাবে ক্ষুণ্ন হয়েছে। সেই সঙ্গে ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে মুক্তিযুদ্ধসহ সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে নেতৃত্বদানকারী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে খুনীর দল বলে মন্তব্য করায় অত্র মামলার বাদীর সংগঠন ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এবং এর সভানেত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত, সামাজিক, জাতীয় এবং আন্তার্জাতিকভাবে মানসম্মান ক্ষুণ্ন হয়েছে বলে বাদী তার মামলায় দাবি করেন।

এ জন্য বাদী দণ্ডবিধির ৪৯৯/৫০০ ধারায় বর্ণিত অপরাধে এই মামলাটি দায়ের করেছেন। সেই সঙ্গে আসামির বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে সুবিচার দাবি করেছেন বাদী।