মসজিদ আল-হারামে একটি সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনা নস্যাৎ

0

জিসাফো ডেস্কঃ মুসলমানদের পবিত্রতম স্থান কাবা শরিফ ঘিরে থাকা মসজিদ আল-হারামে একটি সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনা নস্যাৎ করে দেওয়ার কথা জানিযেছে সৌদি আরব কর্তৃপক্ষ। শুক্রবার মসজিদ এলাকার দুটি ভবনসহ মোট তিনটি এলাকায় নিরাপত্তা রক্ষীরা অভিযান চালায় বলে আরব নিউজের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, এর মধ্যে একটি ভবন ঘিরে নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযানের মধ্যেই একজন আত্মঘাতী জঙ্গি বিস্ফোরণ ঘটিয়ে নিজেকে উড়িয়ে দেয় বলে সৌদি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভাষ্য। ওই ঘটনায় ভবনটি বিধ্বস্ত হয়ে ১১জন ব্যক্তি আহত হন। ঘটনাস্থল থেকে সন্দেহভাজন পাঁচ জঙ্গিকে গ্রেপ্তার করার কথাও কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

সৌদি নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা জানায়, আল হারাম মসজিদ এলাকার যে দুটি ভবনে জঙ্গিরা অবস্থান নিয়েছিল সেগুলো আসিলাহ ও আজইয়াদ আল-মাসাফি এলাকায় অবস্থিত। এর একটিতে এক আত্মঘাতি জঙ্গিকে চারপাশ থেকে ঘিরে ফেলার পর সে পুলিশের দিকে গুলি চালায়; পুলিশ পাল্টা গুলি চালানোর পর ওই জঙ্গি আত্মঘাতী বিস্ফোরণে নিজেকে উড়িয়ে দিলে ভবনটি ধসে পড়ে। এতে পাঁচ নিরাপত্তারক্ষীসহ ১১ জন আহত হয়।

মক্কার বাইরে জেদ্দা থেকেও এক জঙ্গিকে আটকের কথা জানিয়েছে আরব নিউজ। এক গ্যাস স্টেশন থেকে সৌদি আরবের স্পেশাল ইমার্জেন্সি ফোর্সের সদস্যরা ওই জঙ্গিকে আটক করার পর তার বাড়ি থেকে অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করার কথা জানানো হয়েছে। এসব জঙ্গিরা মসজিদ আল হারামের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ভেঙে ফেলার চেষ্টা করছিল বলে সৌদি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।

দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর এক মুখপাত্র জানান, জঙ্গিদের বিরুদ্ধে অভিযান এখনও চলছে, এক নারীসহ পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে।তবে জঙ্গিদের পরিচয় বা তাদের পরিকল্পনার বিষয়ে বিস্তারিত আর কোনো তথ্য সৌদি কর্তৃপক্ষ জানায়নি। রমজান মাসের শেষ দশ দিনে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে কয়েক লাখ মানুষ ওমরাহ পালন করতে মক্কায় যান।

সুন্নি প্রধান দেশ সৌদি আরবে সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কয়েকটি সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছে, যার মধ্যে বেশ কয়েকটির দায় স্বীকার করেছে ইসলামিক স্টেট (আইএস)। এসব হামলার অধিকাংশই হয়েছে সংখ্যালঘু শিয়া এবং সৌদি নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের লক্ষ্য করে। ২০১৬ সালের জুলাইয়ে মদিনায় মসজিদে নববীর কাছে এক আত্মঘাতী বোমা হামলায় চার নিরাপত্তারক্ষী নিহত হয়েছিলেন।