ভ্যাট প্রত্যাহারের আন্দোলনে রাজধানীতে অচলাবস্থা

0

ঢাকা: টিউশন ফি থেকে মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) প্রত্যাহারের দাবি ও আন্দোলনরত ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ কর্মসূচি চলছে।  রাজপথে এ আন্দোলনের কারণে রাজধানীতে অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১০ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টা থেকে প্রধান কয়েকটি পয়েন্টসহ রাজধানী ও দেশের বিভিন্ন স্থানে শিক্ষার্থীরা ‘নো ভ্যাট অন এডুকেশন’ ব্যানারে এ বিক্ষোভ কর্মসূচি শুরু করেন।

শিক্ষার্থীরা রাজধানীর অধিকাংশ রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ করায় তীব্র যানজটে অচল হয়ে পড়েছে পুরো নগরী। অচলাবস্থার কারণে পায়ে হেঁটেই গন্তব্যের উদ্দেশ্যে রওনা দিতে হচ্ছে কর্মজীবী মানুষকে।

তীব্র যানজটের বিষয়ে ট্রাফিক পুলিশের সিনিয়র সহকারী কমিশনার আবু ইউসুফ বলেন, আমরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে চেষ্টা করছি। যানজট নিরসনের জন্য বিকল্প রাস্তা দিয়ে (রং সাইড) যানবাহন চলাচলের অনুমতি দিয়েছি।

ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবিতে সকাল সাড়ে ১১টা থেকে রামপুরা ব্রিজ ও মেরুল বাড্ডা এলাকা অবরোধ করে বিক্ষোভ করছেন ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীরা। এ কারণে রামপুরা ব্রিজকে ঘিরে থাকা রামপুরা-হাতিরঝিল-বাড্ডা-বনশ্রী এলাকার যান চলাচল বন্ধ রয়েছে।

একই দাবিতে দুপুর ১২টা থেকে উত্তরায় রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ করছেন উত্তরা ইউনিভার্সিটি, বিজিএমইএ ইউনিভার্সিটি, সান্তা মারিয়াম ইউনিভার্সিটি, নর্দান ইউনিভার্সিটি ও এশিয়ান ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা। ফলে এয়ারপোর্ট থেকে আবদুল্লাহপুর পর্যন্ত যান চলাচল বন্ধ রয়েছে।

ধানমন্ডিতে রাস্তার একপাশে বসে বিক্ষোভ করছেন স্টামফোর্ড, ড্যাফোডিল ও ল্যাবএইড ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীরা। এ কারণে নিউমার্কেট থেকে ধানমন্ডি ২৭ পর্যন্ত দেখা দিয়েছে স্থবিরতা।

শ্যামলী মোড়ে আশা ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীরা রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ করায় মিরপুর ও গাবতলী যাওয়ার রাস্তা বন্ধ রয়েছে।

বারিধারার নর্দ্দা-নতুনবাজার-কুড়িল এলাকা অবরোধ করে রেখেছেন নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি ও ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটির বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা।

এছাড়া,  মহাখালী ওয়ারলেস এলাকায় বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের সামনে রাস্তা বন্ধ করে বিক্ষোভ করছেন ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীরা। এ কারণে গুলশান ১ নম্বর থেকে মহাখালী পর্যন্ত যান চলাচল বন্ধ রয়েছে।

এসব গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা বন্ধ থাকায় পুরো রাজধানীই অনেকটা স্থবির হয়ে পড়েছে।

বারিধারা রোডে আন্দোলনরত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শিক্ষার্থী  বলেন, আমাদের সবার পরিচয় আমরা শিক্ষার্থী। আমরা সবাই এখানে শান্তিপূর্ণভাবে সমাবেশ করছি। আমাদের একটাই দাবি, শিক্ষার উপর ৭ দশমিক ৫ শতাংশ ভ্যাট প্রত্যাহার। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাবো।

তারা আরও বলেন, বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর) একই দাবিতে আমাদের শিক্ষার্থী ভাইদের উপর কেন লাঠিচার্জ ও গুলি চালানো হলো, এর উত্তর চাই। আমরা তো সন্ত্রাসী নই, তবে কেন আমাদের সঙ্গে এই বর্বর আচরণ করা হলো?

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারের উপ-কমিশনার মুনতাসিরুল ইসলাম বলেন, পুলিশ ধৈয্যের সঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবেলার চেষ্টা করছে। আমরা আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপর নজরদারি রাখছি।