ভারতীয় মুসলিম হত্যার নিন্দায় “প্রতিবাদী সংবাদ সম্মেলনে পুলিশীর বাধা: ৩ ঘন্টা অবরুদ্ধ মাহমুদুর রহমান

0

নিজস্ব প্রতিবেদক:  ভারতীয় মুসলমানদের নির্মমভাবে নির্যাতনের প্রতিবাদে দৈনিক আমারদেশ সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের সংবাদি সম্মেলনে বাধা দিয়েছে পুলিশ বলে অভিযোগ করেছেন তিনি।
ফলে আজ সকাল সাড়ে ১০টার সংবাদ সম্মেলন তিনি বেলা ১টায় করেছেন ।

মাহমুদ রহমানের বাসায় পুলিশ ও সাদা পোশাকধারী গোয়েন্দা পুলিশ গভীর রাত থেকে ঘন্টা দেড়েক আগ পর্যন্ত ঘিরে রাখে। গোয়েন্দা পুলিশ মাহমুদুর রহমানকে সংবাদ সম্মেলন করা যাবে না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দেয়। এ বিষয়ে মাহমুদুর রহমান তাদের কাছে জানতে চাইলে গোয়েন্দারা উপর মহলের কথা জানায়।

এ সময় তার বাসার সামনে অবস্থানরত পুলিশ কর্মকর্তা এসি রফিকুল ইসলাম এবং এসি রাসেলের কাছে জানতে চাইলে তারা মাহমুদুর রহমানকে জানান,` উপর মহলের নির্দেশ রয়েছে।’

 


পরবর্তীতে তারা আবারো উপরের মহরেলর নিদের্শে সেখান থেকে ফিরে যান ।
এদিকে ঢাকা রিপোর্টাার্স ইউনিটিতেও পুলিশের বাধার সম্মুখিন হয়েছেন মাহমুদুর রহমান। এমনকি পুলিশ রিপোর্টার্স ইউনিটির সব সুযোগ -সুবিধাও বন্ধ করে দেয়্ এসময় আমার দেশ’র সাংবাদিকরা জানতে চাইলে তারা কোন জবাব দিতে পারিনি। পরবর্তীতে পুলিশ আবার চলে যায়।

এদিকে . ঢাকা রিপোর্টাস ইউনিটির সভাপতি বলেছেন, ‌‌” সকালে ডিআরইউতে শাহবাগ থানার এসআই মাহবুব আসেন। মাহবুব পিয়নের মাধ্যমে আমাকে কল করে বলেন যে – মাহমুদুর রহমানকে সংবাদ সম্মেলন করতে দেয়া হলে দেশে যদি দাঙ্গা বাধে তার দায়-দায়িত্ব ডিআরইউকে বহন করতে হবে। এ কথা শুনে সাখাওয়াত হোসেন বাদশা বলেন ডিআর ইউ কোন দায় নিতে রাজি নয়। ”
অপরদিকে এ ঘটনার পর পুলিশ ফের মাহমুদুর রহমানকে সংবাদ সম্মেলন করার অনুমতি দিলেও ডিআরইউ সভাপতিকে শাহবাগ থানা তা জানায়নি। ফলে মাহমুদুর রহমান সংবাদ সম্মেলন করতে আসার পর ডিআরইউ তাতে বাধা দেয়।
অন্যদিকে এ ঘটনায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বিএনপি। বিএনপিরিসিনিযর যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবীর রিজভী বলেছেন- আমার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক, সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের আহবায়ক এবং দেশের বিশিষ্ট সাংবাদিক কলামিষ্ট মাহমুদুর রহমানের আজকে একটি সংবাদ সম্মেলন আয়োজিত হবে। এই সম্মেমনকে কেন্দ্র করে জনাব মাহমুদ রহমানের বাসায় পুলিশ ও সাদা পোশাকধারী গোয়েন্দা পুলিশ গভীর রাত থেকে ঘন্টা দেড়েক আগ পর্যন্ত ঘিরে রাখে। গোয়েন্দা পুলিশ মাহমুদুর রহমানকে সংবাদ সম্মেলন করা যাবে না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দেয়। এ বিষয়ে মাহমুদুর রহমান তাদের কাছে জানতে চাইলে গোয়েন্দারা উপর মহলের কথা জানায়। এটি মুক্ত চিন্তা ও বাক স্বাধীনতার ওপর চরম কুঠারাঘাত। গণতন্ত্রকে শিকড়সহ তুলে ফেলার আওয়ামী বিষাক্ত প্রক্রিয়ারই অংশ। অত্যন্ত স্পষ্টভাষী ও সত্য কথা সাহসের সঙ্গে লেখার জন্য সাংবাদিক জনাব মাহমুদুর রহমানকে জালিম সরকার শুরু থেকেই দুশমন মনে করে। সরকার মাহমুদুর রহমানের ওপর দীর্ঘদিন স্টিমরোলার চালিয়েও তাদের প্রতিহিংসার দাবানল স্তিমিত করতে পারছে না। তাই মাহমুদুর রহমান ও তাঁর কথা বলা ও লেখাকে নানাভাবে আটকানোর জন্য সরকার রাষ্ট্রশক্তির দমনযন্ত্র প্রয়োগ অব্যাহত রেখেছে। আমি বিএনপি’র পক্ষ থেকে সরকারের এধরণের বাক স্বাধীনতা হরণের মতো ঘৃণ্য ঘটনা ও নিষ্ঠুর উৎপীড়ণের নিন্দা জানাই।

দৈনিক আমার দেশর সাংবাদিকরা বলেন , ‌‌ ” নানানভাবে পুলিশ মাহমুদুর রহমানকে হয়রানী করেছে ।

পরবর্তীতে বেলা ১টায় সংবাদ সম্মেলণ করেন দৈনিক আমারদেশ সম্পাদক মাহমুদুর রহমান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ,কবি ও দার্শনিক ফরহাদ মজহার, জাতীয় পেশাজীবি সমন্বয় পরিষদের আহবায়ক রুহুল আমিন গাজী , সৈয়দ আবদাল আহমেদ , সাংবাদিক নেতা এম আব্দুল্লাহ , সাংবাদিক নেতা কবি আব্দুল হাই শিকদার ,সাংবাদিক কাদের গনি চৌধুরী, সাংবাদিক নেতা মো শহিদুল ইসলাম , ও দৈনিক আমার দেশ’র বার্তা সম্পাদক জাহেদ চৌধুরী সহ বিশিষ্ট ব্যক্তি-বর্গ।