ভদ্র আচরণ শিখতে জয়কে দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তির পরামর্শ রিজভীর

0
জিসাফো ডেস্কঃ প্রধানমন্ত্রীর ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়কে সৌজন্যবোধ ও ভদ্র আচরণ শিখতে দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তির পরামর্শ দিয়েছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ।

শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে ‘সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৩৫তম মৃত্যুবার্ষিকী, বহুদলীয় গণতন্ত্র, বর্তমান গণতন্ত্রের আওয়ামী স্টাইল ও আমাদেরও করণীয়’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এই পরামর্শ দেন।

আলোচনা সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ প্রজন্ম একাডেমি।

রিজভী আহমেদ বলেন, জয় প্রধানমন্ত্রীর ছেলে হয়ে তার মায়ের বয়সী একজন ভদ্র নারীর নামে নোংরা ভাষায় কথা বলতে পারেন না। তিনি কোথায় শিক্ষা নিয়েছেন তা জানি না। তার শিষ্টাচার ও সৌজন্যবোধ থাকা উচিত।

তিনি আরো বলেন, সজীব ওয়াজেদ জয় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য বিষয়ক উপদেষ্টা হওয়ার পর থেকেই দেশে লুটপাট শুরু হয়েছে। তিনি তথ্য উপদেষ্টা হওয়ার সফলতা হচ্ছে দেশের রাজকোষ খালি হয়ে যাওয়া।

বর্তমান সরকারের শাসনামলে শেয়ার বাজার, ব্যাংক লুট, বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরি হয়েছে। এ রকম পরিস্থিতে দেশ চলতে পারে না বলেও মন্তব্য করেন রিজভী।

হংকং ভিত্তিক মানবাধিকার সংগঠন এইচআরসির প্রতিবেদনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিরাপত্তায় বিদেশি নাগরিক রয়েছেন এমন তথ্যের উল্লেখ্য করে রিজভী বলেন, এ প্রতিবেদনের কথা কতটুকু সত্য জানি না। যদি সত্য হয়ে থাকে তাহলে প্রধানমন্ত্রীর দেশ প্রেম প্রশ্নবিদ্ধ। আপনি কথায় কথায় দেশপ্রেমের কথা বলেন। তাহলে আপনার দেশপ্রেম কোথায়। আমাদের দেশের সেনাবাহিনী ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি আপনার আস্থা নেই।

তিনি বলেন, সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার জন্য সর্বপ্রথম বিচার বিভাগের স্বাধীনতা দিয়েছিলেন। তিনি বিচার বিভাগের অভিশংসন ক্ষমতা বিচার বিভাগকেই দিয়েছিলেন। এখন ভোটারবিহীন সরকার বিচার বিভাগের নিয়ন্ত্রণ নিতে অভিশংসন ক্ষমতা সংসদের কাছে নিতে চাচ্ছে। এতে মানুষ ন্যায় বিচার থেকে বঞ্ছিত হবে।

বাংলাদেশ প্রজন্ম একাডেমির সভাপতি কালাম ফয়েজীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন-  বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস জাহান শিরিন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ ও মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইসতিয়াক আজিজ উলফাত প্রমুখ।