বাংলাদেশে সুষ্ঠ নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তর চায় চীন

0

নির্বাচনী বছরে বাংলাদেশে শান্তিপূর্ণ উপায়ে ক্ষমতা হস্তান্তর প্রত্যাশা করছে চীন। দেশটির মতে, বাণিজ্য ও বিনিয়োগের জন্য সুষ্ঠু ও স্থিতিশীল পরিবেশ প্রয়োজন। এই পরিবেশ নিয়ে চীনের কোম্পানীগুলোর উদ্বেগ রয়েছে।

সংহাইতে আন্তর্জাতিক আমদানি প্রদর্শনী ও দ্বিপক্ষীয় অর্থনৈতিক সহযোগিতার ওপর আলোকপাত করে আজ চীনা দূতাবাসে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ অভিমত প্রকাশ করা হয়।

বহির্বিশ্ব থেকে আমদানি বাড়ানোর মাধ্যমে চীনের সাথে বাণিজ্য ঘটাতি কমাতে এ বছর নভেম্বর থেকে প্রতি বছর নিয়মিতভাবে এই প্রদর্শনী অনু্ষ্ঠিত হবে। বিশ্বে সর্ববৃহত বাণিজ্যিক অংশীদার চীনের সাথে বাংলাদেশের রয়েছে ব্যাপক বাণিজ্য ঘাটতি।

বাণিজ্য ঘাটতি কমিয়ে আনতে বাংলাদেশের সাথে মুক্তি বাণিজ্য চুক্তি (এফটিএ) সইয়ের ওপর গুরুত্বারোপ করে চীনা দূতাবাসের কমার্শিয়াল কাউন্সিলর লি কোয়াং জুন বলেন, এফটিএ’র মাধ্যমে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য সহজীকরনের পাশাপাশি বিনিয়োগও বৃদ্ধি পাবে।

বিনিয়োগ বাড়লে চীনের কোম্পানীগুলো বাংলাদেশের রফতানি পণ্যের বহুমুখীকরনে ভূমিকা রাখতে পারবে। একই সাথে আন্তর্জাতিক বাজারে বাংলাদেশী পণ্যের প্রতিযোগিতা করার সক্ষমতা বাড়বে।

চীনের সাথে বাণিজ্য ঘাটতি কমিয়ে আনতে বাংলাদেশী পণ্যের বহুমুখীকরনের পাশাপাশি বাজারে প্রতিযোগিতা করার সক্ষমতা অর্জন করতে হবে।

তিনি বলেন, গত বছর চীন থেকে বাংলাদেশ আমদানি করেছে এক হাজার ৬০০ কোটি ডলারের পণ্য। আর রফতানি করেছে ১০০ কোটি ডলারের পণ্য।

বাংলাদেশী পণ্য চীনের বাজারে পরিচিত করার জন্য সংহাইতে আন্তর্জাতিক আমদানি প্রদর্শনী একটি ভাল সুযোগ। বাংলাদেশে সরকারি সংস্থা রফতানি উন্নয়ন ব্যুারো এবং বেসরকারি কোম্পানীগুলো এই প্রদর্শনীতে অংশ নিতে ক্রমেই আগ্রহী হয়ে উঠছে। উতস-শীর্ষ খবর