বাংলাদেশে আইসিটি’র বিকাশে তারেক রহমানের ভূমিকা

0
তারেক রহমান
বাংলাদেশে আইসিটি’র বিকাশে তারেক রহমানের ভূমিকা

বাংলাদেশে আইসিটি’র বিকাশে তারেক রহমানের ভূমিকা

জুবায়ের তানভীর সিদ্দিকী

২০০০ সাল পরবর্তী সময়টি ছিল সারাবিশ্বে আইসিটি(ইনফরমেশন এ্যান্ড কমিউনিকেশন টেকনোলজি)’র যাত্রা ও বিকাশের কাল। বাংলাদেশে সরকার পরিচালনায় তখন ছিল বিএনপি। বিএনপি সরকার আইসিটির গুরুত্ব বুঝতে ভুল করেনি। ফলে এই খাতকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে বিএনপি সরকারের আমলেই প্রথমবারের মতো আলাদা করে বাংলাদেশে তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক মন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠিত হয়।  মূলত বিএনপির তৎকালীন সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব জনাব তারেক রহমানের আগ্রহ ও উদ্যোগই বাংলাদেশে আইসিটি’র প্রবেশ ও প্রসারের ক্ষেত্রে মূল ভূমিকা রাখে।কম্পিউটিং জগত সম্পর্কে যথেষ্ট ধারনা থাকায় জনাব তারেক রহমান ঠিকই বুঝতে পেরেছিলেন তথ্য সংগ্রহ ও আদান-প্রদান সহ আগামীতে মানব জীবনের প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রেই ব্যাপক ভূমিকা রাখতে যাচ্ছে আইসিটি সেক্টর। ২০০৫ সালের ২০ এপ্রিল বিল গেটস ফাউন্ডেশনের আমন্ত্রণে আমেরিকার সিয়াটলে অবস্থিত মাইক্রোসফট অফিস পরিদর্শন করেন বিএনপির তৎকালীন সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব জনাব তারেক রহমান। জনাব তারেক রহমানের মাইক্রোসফট অফিস সফরকালে তাকে অভ্যর্থনা জানান বিল গেটস এবং এশিয়ার উদীয়মান এই ক্যারিশম্যাটিক নেতাকে মানব সভ্যতাকে আরও উচ্চতর স্তরে নিয়ে যাওয়ার জন্য পরিকল্পিত মডেল, “ওয়ার্ল্ড ২০২০” এর প্রদর্শন করান। পরে সফররত বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব জনাব তারেক রহমান এবং মাইক্রোসফট কোম্পানির ওনার জনাব বিল গেটস এক বৈঠকে বাংলাদেশে আইসিটি ডেভেলপমেন্ট নিয়ে আলোচনা করেন। জনাব তারেক রহমান তখন বিল গেটসকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান। এর আট মাস পর বিএনপি সরকারের আমলেই  ২০০৫ সালের ৪ ডিসেম্বর মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস ও তার স্ত্রী মেলিন্ডা গেটস প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ সফর করেন।

বিল গেটস তার বাংলাদেশ সফর কালে প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সাথে তার অফিসে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক মাইক্রোসফট কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান ও চীফ সফ্টওয়্যার স্থপতি বিল গেটস তার বাংলাদেশ সফর কালে প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সাথে তার অফিসে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন এ সময় মি.গেটস এর সাথে তার স্ত্রী মিসেস মেলিন্ডা গেটসও ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর সাথে সাথে সাক্ষাৎ কালে মি.গেটস বাংলাদেশে মাইক্রোসফট কোম্পানিরে বিনিয়োগ আরও বৃহৎ পর্যায়ে করার আগরহ প্রকাশ করেন।তিনি বলেন পরবর্তী পর্যায়ে আমরা আরও বেশি এলাকা জুড়ে বিদ্যমান বিনিয়োগ বজায় রাখার সুবিধা নিয়ে আসব।মি.গেটস বলেন প্রচার না থাকায় আইসিটি সেক্টরে বাংলাদেশের অগ্রগতি ও আগ্রহের ব্যাপারে অনেক কিছুই তাদের অজানা ছিল এ দেশে প্রথমবার সফরে এসে তারা বেশ ভালই উপলব্ধি করতে পারছে যে দেশটি এ সেক্টরে অনেক কাজ করেছে।

মাইক্রোসফটের প্রধান চট্টগ্রামে এশিয়ান উইমেন ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ গ্রহণে প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার প্রশংসা করেন এবং বিল ও মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন আর্থিক সাহায্য প্রদান করে। তিনি বলেন যে তারা বাংলাদেশে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি উন্নয়নে সহযোগিতা করবে।

এই সফরে বিল গেটস এর অংশ গ্রহণে পরবর্তী তিন বছরে আইসিটি’র উপর ১০,০০০ শিক্ষক ও ২০০,০০০ শিক্ষার্থীকে  প্রশিক্ষণ দেওয়ার জন্য বাংলাদেশ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে ও মাইক্রোসফট কোম্পানির মধ্যে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।পরবর্তীতে উক্ত ১০,০০০ শিক্ষক ও ২০০,০০০ শিক্ষার্থীর মাধ্যমেই বাংলাদেশের আইসিটি সেক্টরের ভিত তৈরি হয়, এইসব কর্মকাণ্ডে প্রমাণিত বিএনপি সরকার বাংলাদেশে আইসিটি(তথ্য প্রযুক্তি)সেক্টরকে দৃঢ়ভিত্তির উপর প্রতিষ্ঠিত করে দিয়ে যায় এবং যার মুখ্য ভূমিকা পালন করেন বিএনপির তৎকালীন সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব জনাব তারেক রহমান যা এখনও প্রবহমান।

Written&Published By: Zubair Tanvir Siddique