বাংলাদেশের জীবনে এমন ভয়াবহ দুঃশাসন ও নাজুক পরিস্থিতি আর কখনো আসেনি;রুহুল কবির রিজভী

0

জিসাফো ডেস্কঃ রোহিঙ্গা সঙ্কট মোকাবিলায় ক্ষমতাসীন সরকার কূটনৈতিকভাবে ব্যর্থ মন্তব্য করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেছেন, ‘ভোটারবিহীন সরকার ক্ষমতাকে দীর্ঘায়িত করতে গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ডের মতো মানবধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা অব্যাহত রেখেছে’। এ ধরনের ঘটনাকে স্থায়ী রুপ দিয়েছে আওয়ামী লীগ। এমনকি কূটনৈতিক ব্যর্থতায় রোহিঙ্গা পরিস্থিতি ভয়ঙ্কর রুপ নিতে যাচ্ছে। বাংলাদেশের জীবনে এমন ভয়াবহ দুঃশাসন ও নাজুক পরিস্থিতি আর কখনো আসেনি।

আজ শুক্রবার সকালে নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব বলেন। রিজভী লিখিত বক্তব্যে বলেন, প্রতিদিনই পত্রিকার পাতা খুললেই বা গণমাধ্যমে খবর বের হয় নিখোঁজ কিংবা বিচারবহির্ভূত হত্যার ঘটনা যা শুধু উদ্বেগজনক নয় ভয়ংকর আতংকের। অথচ সরকার বরাবর বিচারবহির্ভূত হত্যাকা-, গুমের মতো বিষয়গুলো অস্বীকার করছে।

২০টি মানবাধিকার সংগঠনের মোর্চা হিউম্যান রাইটস ফোরাম বলেছে, ২০১৩ সাল থেকে চলতি বছরের জুন মাস পর্যন্ত বিচারবহির্ভূত হত্যাকা-ের শিকার হয়েছেন ৮২৩ জন। একই সময়ে গুমের শিকার হন ৩৪ জন। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৩ সাল থেকে চলতি বছরের জুলাই মাস পর্যন্ত সীমান্ত সহিংসতায় মারা গেছেন ১৪৭ জন।

২০১৩ সাল থেকে গত বছর পর্যন্ত ১৪ জন মানবাধিকারকর্মী হত্যার শিকার হয়েছেন। এছাড়া গত বছর ১১৭ জন সাংবাদিক শারীরিক, মানসিকভাবে লাঞ্ছনা, হামলা ও মামলার শিকার হয়েছেন। তবে বিএনপির তথ্য মতে এই গুম-খুন-বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ডের সংখ্যা আরো বেশি বলে জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা আব্দুস সালাম, অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া, রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, মাসুদ আহমেদ তালুকদার, অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ, মো: মুনির হোসেন, মো: ফিরোজ উজ জামান মামুন মোল্লা, আসাদুল করিম শাহিন, জেড মোর্তুজা চৌধুরী তুলা, অধ্যাপক আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।

রিজভী বলেন, ২০১৪ সালের জানুয়ারির নির্বাচনের মাধ্যমে গণতন্ত্রকে হত্যা করা হয়েছে, বিএনপি চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া, সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ লাখ লাখ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে জুলুম নির্যাতন চলছে, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা কেড়ে নেওয়া হয়েছে, দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি চরম ভেঙ্গে পড়েছে, নারী-শিশু নির্যাতন ও পাশবিকতা থামছেই না, নারীরা ঘর থেকে বের হতে ভয় পাচ্ছে, কোমল মতি শিশু ও স্কুল কলেজের মেয়েরাও আতঙ্কিত জীবন যাপন করছে, গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ডে উদ্বেগ ও উৎকন্ঠিত সবশ্রেনীর মানুষ, মানুষের বাক স্বাধীনতা বলতে ছিটেফোটাও নেই, গণমাধ্যমের গলা টিপে ধরে রাখা হয়েছে।

অন্যদিকে চাল, আটাসহ সকল নিত্যপণ্যের দাম আকাশছোঁয়া, চালের দাম কয়েক টাকা কমেছে বলে মন্ত্রীরা গলাফাটালেও খুচরা বাজারে দাম কমেনি এক টাকাও। তিনি বলেন, লুটপাটের কারণে দেশের সামগ্রিক অর্থনীতি ভেঙ্গে পড়েছে, কলকারখানা প্রায় বন্ধের উপক্রম, বিদেশী বিনিয়োগ নেই, দেশী বিনিয়োগকারীরাও হাত গুটিয়ে নিয়েছেন, সরকারের ব্যর্থনীতির কারণে বিদেশে শ্রমিক পাঠানো দুরে থাক লাখ লাখ কর্মক্ষম শ্রমিককে ফেরত পাঠানোর ফলে রেমিট্যান্স প্রবাহে ধস নেমেছে, নতুন কর্মসংস্থানের সৃষ্টি না হওয়ায় বেকারত্বের কড়াল গ্রাসে হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন যুবসমাজ, গ্যাস-বিদ্যুৎ-পানি, ট্যাক্স, হোল্ডিং টেক্স বৃদ্ধির কারণে জনগণের মধ্যে নাভিশ্বাস অবস্থা বিরাজ করছে, পরিবেশ বিনাসী প্রকল্প নিয়ে সুন্দরবনকে ধ্বংস করার পাঁয়তারা করছে, মিথ্যা উন্নয়নের জোয়ারে সারাদেশের সড়ক-মহাসড়ক ও ব্রিজ কালভার্টের বেহাল দশা বিরাজ করছে। বিএনপির সিনিয়র এই নেতা বলেন, এমনি ভয়ানক পরিস্থিতিতে গতকাল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন ‘শেখ হাসনিা বিশ্ব শান্তির অগ্রদূত, বিশ্ব মানবতার বাতিঘর’। ওবায়দুল কাদেরের হাস্যকর এমন মন্তব্যে গোটাজাতি লজ্জা পেয়েছে।

রোহিঙ্গা ইস্যু প্রসঙ্গে রিজভী বলেন, কোনো সুনির্দিষ্ট সিদ্ধান্ত বা প্রস্তাব ছাড়াই শেষ হয়েছে রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়ে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের উন্মুক্ত বিতর্ক। জাতিসংঘের পক্ষ থেকে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিবে কিনা সংশয় প্রকাশ করা হয়েছে। রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান না হওয়ার প্রধান কারণ কূটনীতিক ব্যর্থতা।