ফের একতরফা নির্বাচনের দিকে এগুচ্ছে ইসি-সরকার: রিজভী

0

ঢাকা: একতরফা ও নীলনকশার নির্বাচনের দিকে নির্বাচন কমিশন (ইসি) ও সরকারের যৌথ প্রযোজনায় এগুচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তবে তিনি সরকারকে আবারো একটি নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য পদক্ষেপ নেয়ার আহবান জানান। শুক্রবার বেলা ১১টায় নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব মন্তব্য করেন। রিজভী বলেন, প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে মন্ত্রী-এমপি ও আওয়ামী নেতারা সরকারি ব্যয়ে ইতোমধ্যেই নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিচ্ছেন। যা সম্পূর্ণরূপে নির্বাচনী আইন পরিপন্থী। দেশের ভোটারদের ভোটাধিকার যেহেতু থাকবে না সেহেতু ক্ষমতাসীনরা আগামী নির্বাচন নিয়ে অনাচারে লিপ্ত। সেইজন্য নির্বাচনী নিয়ম-কানুন মেনে চলা তাদের ধর্তব্যে পড়ে না। অন্যদিকে বিএনপিসহ বিরোধী দলের স্বাভাবিক রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে ও বাধা দিচ্ছে সরকার। বহিরাঙ্গণের সভা করা দূরে থাক বিএনপির ঘরোয়া সভাতেও পুলিশ ও সরকারের দলীয় সন্ত্রাসীরা আক্রমণ চালাচ্ছে। রিজভী আরও বলেন, নিরঙ্কুশ ক্ষমতার অধিকারী হয়ে সেটিকে দীর্ঘস্থায়ী করার জন্য আপনারা আগামী সাধারণ নির্বাচন নিয়ে নতুন করে ফন্দি-ফিকির করছেন। আপনাদের অধীনে নির্বাচন কখনোই সুষ্ঠু ও অবাধ হয়নি। সুতরাং আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন আওয়ামী লীগ দলীয় প্রধানের নেতৃত্বে না করে দলনিরপেক্ষ ব্যক্তির অধীনে অনুষ্ঠিত করতে এগিয়ে আসুন। নিজেদের সীমাহীন অনাচার ও চরম ব্যর্থতায় দেশে যে দুর্বিষহ দুর্বিপাক ঘটে চলেছে সেটিকে পর্দা দিয়ে আড়াল করার জন্য কতই না বিভ্রান্তি, অপপ্রচার ও মিথ্যাচার চালিয়ে যাচ্ছেন। জনগণের নির্ভিক নেত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র, চক্রান্ত, মানসিক নির্যাতন বিরতিহীনভাবে চালিয়ে যাবার পরও মিথ্যা প্রচার অব্যাহত রেখেছেন। বাংলাদেশ গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামভূমি। এই সংগ্রামভূমি নির্মাণ করেছেন আপসহীন নেত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। জনগণের কাতারে থেকেই গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়ে গণতন্ত্রের নতুন যুগের প্রত্যুষ নিশ্চিত করবেন তিনি। রিজভী বলেন, ৫৭ ধারার মাধ্যমে সাংবাদিকদের নির্যাতন করছে সরকার। তিনি আরও বলেন, আইনমন্ত্রী ৫৭ ধারা বাতিল করার কথা বললেও সেই স্থান থেকে ফিরে এসেছেন। গ্রেপ্তারকৃত সাংবাদিকদের অবিলম্বে মুক্তির দাবি জানান রিজভী। আরও উপস্থিত ছিলেন, তৈমুর আলম খন্দকার, শহিদ উদ্দিন চৌধুরি এনি, এ্যাড আব্দুস সালাম আজাদ, অ্যাড. মাসুদ আজাদ তালুকদার, অ্যাড. সানাউল্লাহ মিয়া, মিয়া শরাফাত আলী সপু প্রমুখ।