পিন্টুর পথ চেয়ে বাবা-মা, সম্রাটের জন্য কাঁদছেন স্ত্রী

0

ঢাকা: রাজধানীর সূত্রাপুর থানা ছাত্রদলের সভাপিত সেলিম রেজা পিন্টু ২০১৩ সালের ১১ ডিসেম্বর মিরপুরের পল্লবী থেকে গুম হন। এরপর থেকে পিন্টুর বাবা-মা ও বড়বোন রেহানা বানু মুন্নি নিখোঁজ পিন্টুর সন্ধানে অধীর আগ্রহে পথ চেয়ে আছেন। সারাক্ষণ তারা ভাবেন, এই বুঝি বুকের মানিক ফিরছে ঘরে। কিন্তু দিন, মাস ও বছর তার নিজস্ব গতিতে অতিবাহিত হলেও বাবা-মার প্রিয় সন্তান ঘরে ফিরে আসে না।

সেলিম রেজা পিন্টু গুম হওয়ার পর তার সন্ধানে আইনশৃঙ্খলা বাহনীসহ সবার দ্বারে দ্বারে ঘুরলেও পরিবারটি কাঙ্ক্ষিত কোনো ফল পায়নি। পিন্টুর সন্ধানে সবার দ্বারে দ্বারে ঘুরে সব অর্থ শেষ করে ফেললেও ছেলেকে পাওয়ার পরিবর্তে একবুক জ্বালা-যন্ত্রণাকে সঙ্গী হিসেবে পেয়েছেন পিন্টুর বাবা-মা। এখন অর্থকষ্ট, ক্ষুধার জ্বালা ও ছেলে হারানোর বেদনায় প্রতিদিন যেন পরিবারটিকে ভোগ করতে হচ্ছে মরণের স্বাদ।

অপরদিকে, একই অবস্থায় স্বামীর পথ চেয়ে আছেন গুম হওয়া আরেক নেতা সম্রাট মোল্লার স্ত্রী কানিজ ফাতেমা। সম্রাট মোল্লা সূত্রাপর থানার সাংগঠিনক সম্পাদক। তিনি ২০১৩ সালের ২৮ নভেম্বর গুম হন। এরপর থেকে তার আর কোনো খোঁজ পাননি তার স্ত্রী।

 

 

দলের পক্ষ থেকে কী করা হচ্ছে? এমন প্রশ্নের জবাবে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘গুম হওয়া বিএনপির নেতাকর্মীদের প্রায় সব পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে আমরা যোগাযোগ করেছি। এর বাইরে বিএনপির সামর্থ অনুযায়ী প্রতিটি পরিবারকে আর্থিক সহযোগিতাও করা হয়েছে। কিন্তু বিএনপির পক্ষে তাদের সন্তান ও স্বামীকে ফিরে দেয়া সম্ভব নয়। এর দায় সরকারের। তবে সরকার সেটা করছে না বলে আমার মনে হয়।’

তিনি আরো বলেন, ‘একটি গণতান্ত্রিক সরকার কখনো কাউকে গুম করতে পারে না। কিন্তু দেশে বর্তমান একটি অনির্বাচিত সরকার জোর করে ক্ষমতা দখল করেছে। তাই তারা ক্ষমতা ধরে রাখার অপচেষ্টা হিসেবে একের পর এক বিএনপির নেতাকর্মীদের গুম করছে।’

একই বিষয়ে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বেগম সেলিমা রহমান বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ দলের শীর্ষস্থানীয় নেতারা গুম হওয়া পরিবারের খোঁজ নিচ্ছেন। আর আমাদের পক্ষ থেকে যতটুকু সহযোগিতা করা দরকার সেটা আমরা করছি।’

গুম হওয়া নেতাদের সন্ধানে বিএনপির পক্ষ থেকে কোনো পদক্ষেপ কিংবা উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘বিএনপি নেতাদের গুম করেছে সরকার। তাহলে আমরা কীভাবে তাদের সন্ধান দেবে? সরকারকেই গুম হওয়া বিএনপির নেতাদের খুঁজে বের করতে হবে।’

পিন্টু গুমের তদন্তের অগ্রগতি প্রসঙ্গে জানতে চাইলে পল্লবী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. বাদল ফকির বলেন, ‘পিন্টু নিখোঁজসহ সব গুমের তদন্ত চলছে। তবে এসব তদন্তের কোনো অগ্রগতি নেই। কারণ, আমাদের কাছে কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্য ও প্রমাণ নেই। এরপরও আমরা তদন্ত অব্যহত রেখেছি এবং তাদের সন্ধানের জন্য বিভিন্ন ধরনের প্রচেষ্টা চলাচ্ছি।’