নির্যাতিত হয়েছেন, তবুও আপোষ করেননি পিন্টু- আবদুস সালাম

0

ঢাকা : বিএনপির রাজনীতি করতে গিয়ে অত্যাচারিত-নির্যাতিত হলেও নাসির উদ্দিন আহমেদ পিন্টু সরকারের সঙ্গে আপোষ করেননি বলে দাবি করেছেন দলটির অর্থনৈতিক বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সালাম।

মঙ্গলবার (৩ মে) বাদ আসর রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচতলায় দলটির উদ্যোগে আয়োজিত এক দোয়া ও মিলাদ মাহফিলে অংশ নিয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ দাবি করেন তিনি। বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় সাবেক সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক নাসির উদ্দিন আহমেদ পিন্টুর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এ দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।

আব্দুস সালাম বলেন, ‘বিএনপির রাজনীতি করতে গিয়ে নাসির উদ্দিন আহমেদ পিন্টু অত্যাচারিত-নির্যাতিত হয়েছেন। তবু তিনি সরকারের সঙ্গে আপোষ করেননি। ঢাকার রাজনীতিতে তার অনেক অবদান। ঢাকা মহানগর বিএনপিতে পিন্টুর মতো নেতার আজ বড় প্রয়োজন ছিল।’

যুবদল, ছাত্রদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলে নাসির উদ্দিন আহমেদ পিন্টুর অনেক অনুসারী রয়েছে জানিয়ে তাদেরকে পিন্টুর আদর্শ ধারণ করে বিএনপিকে শক্তিশালী করতে কাজ করার আহ্বান জানান মহানগরের সাবেক এ সদস্য সচিব।

অনুষ্ঠানে পিন্টুর রুহের মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। মোনাজাত পরিচালনা করেন জাতীয়তাবাদী ওলামা দলের সভাপতি হাফেজ আব্দুল মালেক।

এসময় উপস্থিত ছিলেন- ঢাকা মহানগর বিএনপির সদস্য ইউনূস মৃধা, স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম-সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, যুবদল ঢাকা মহানগর উত্তরের সহ-সভাপতি কফিল উদ্দিন ভুইয়া, চকবাজার থানা বিএনপি নেতা আনোয়ার পারভেজ বাদল, লালবাগ থানার সাঈদ হোসেন সোহেল, গোলাম সারোয়ার শামীম, যুবদল নেতা আলমগীর কবির সেলিম, সাঈদ হাসান মিন্টু, স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় সদস্য শফি উদ্দিন আহমেদ সেন্টু ও আব্দুল মান্নান প্রমুখ।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ৩ মে (রোববার) দুপুর ১২টা ২০ মিনিটে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের প্রিজন সেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান নাসির উদ্দিন আহমেদ পিন্টু। এর আগে বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনায় ২০০৯ সালে গ্রেপ্তার হন বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি পিন্টু। তার বিরুদ্ধে বিদ্রোহী বিডিআর জওয়ানদের পালিয়ে যেতে সহযোগিতার অভিযোগ আনা হয়। অভিযোগে তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়। ওই বছরের ২০ এপ্রিল তাকে কাশিমপুর কারাগার থেকে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে স্থানান্তর করা হয়। এর পর হার্টের সমস্যায় তাকে রামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।