নারী ও শিশু নির্যাতন বর্তমান সরকারের দুঃশাসনের প্রতিফলন; রুহুল কবির রিজভী

0

জিসাফো ডেস্কঃ দেশে একের পর এক নারী ও শিশু নির্যাতন বর্তমান সরকারের দুঃশাসনের প্রতিফলন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

মঙ্গলবার (০৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মারুফা আক্তার রূপাসহ দেশব্যাপী নারী ও শিশুর ভয়াবহ নির্যাতনের প্রতিবাদে এ মানববন্ধনের আয়োজন করেছে জাতীয়তাবাদী মহিলা দল।

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ক্ষমতাসীন হওয়ার পর থেকে দেশে নারী ও শিশু নির্যাতন যেন মহামারি আকার ধারণ করেছে। তা যেন জ্যামিতিক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। ঘরে কিংবা বাইরে এমনকি চলন্ত বাসে অবলীলায় ঘটনা ঘটে যাচ্ছে কিন্তু এ ব্যাপারে সরকারের কোনও বিকার নেই। দোষীদের আইনের আওতায় নিয়ে এসে তাদের শাস্তির উদ্যোগ নেই। যদিও দু’একজনকে গ্রেফতার করা হচ্ছে তারা আবার জামিনও পেয়ে যাচ্ছে।’

রুহুল কবির বলেন, ‘যে সরকার দেশের নারী ও শিশুদের নিরাপত্তা দিতে পারে না সেই সরকার কখনও মানবকল্যাণ বান্ধব সরকার নয়। এরা তো  জুলুমবাজ, গায়ের জোরে বসে থাকা অবৈধ সরকার। এদের আচরণের সাথে পার্শ্ববর্তীদেশ মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের উপর নির্যাতনের গড়মিল কোথায়?’

রোহিঙ্গা নির্যাতনের চিত্র তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘ইতোমধ্যে ৪০০ রোহিঙ্গা যুবককে হত্যা করা হয়েছে, বলা হয়েছে এই সমস্ত যুবকরা উগ্রবাদী। অথচ নিরপক্ষে পর্যবেক্ষকরা বলছেন এরা সাধারণ মানুষ, উগ্রবাদী নয়। এর অর্থ হচ্ছে মিয়ানমারের সরকার পরিকল্পিতভাবে জাতিগত নির্মূল অভিযান চালাচ্ছে।’

সাবেক এই ছাত্র নেতা বলেন, ‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের উপর নির্যাতনের ব্যাপারে আমরা (বিএনপি) ক্ষমতাসীন আওয়ামী সরকারকে বার বার বলেছি পদক্ষেপ নিতে কিন্তু তারপরও সরকার নেয়নি। ব্যর্থ সরকার। রোহিঙ্গাদের আশ্রয় নিতে কুণ্ঠিত হচ্ছে। শুধু তাই নয়, যারা আশ্রয় দিতে চাচ্ছে তাদেরকেও সেখানে যেতে দেয়া হচ্ছে না। কারণ এই সরকার আর মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী ও সরকারের আচরণ একই রকম।’

খালেদা জিয়ার রাজনীতি করার লাইসেন্স বাতিল করে দেবেন বলে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর দেয়া বক্তব্যের কঠোর সমালোচনা করে রুহুলি কবির বলেন, ‘বাংলাদেশ কী আপনার পৈতৃক সম্পত্তি। আপনার কথায় কথায় শুধু গুম, খুন আর হত্যা ছাড়া কোনও কথা নেই। কারণ এই কথাগুলোর ওপর আপনার মন্ত্রীত্ব নির্ভর করছে। অথচ আপনি তো অনেক অপকর্ম করেছেন। অনেক মানুষকে হত্যা করেছেন। সুতরাং শেখ হাসিনাকে খুশি করার জন্য উনাকে (ইনু) বলতে হবে খালেদা জিয়ার রাজনীতি করার লাইসেন্স বাতিল করে দিতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এই সরকার অনেক কিছু শিখিয়েছে। কী করে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে চার্জশিট দেয়া যায়। আমরা বিএনপি রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় কোনও কাজ করবে না। তবে যারা অপরাধ করে আইনের আওতা থেকে বেরিয়ে গেছেন এবং সরকারের মোসাহেদী করে সমাজের মধ্যে বিভাজন সৃষ্টি করে গোটা বাংলাদেশকে দুঃশাসনের রাষ্ট্রে পরিণত করেছেন তাদেরকে আর ছাড় দেয়া হবে না।’

রিজভী বলেন, ‘সরকার আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে ঈদের বোনাস দিয়েছেন আর বলেছেন তোমরা বিরোধীদলের নেতাকর্মী ও ব্যবসায়ীদের গুম করো। যত পারো টাকা আদায় করো।’

এসময় সংগঠনের সহ-সভাপতি ও বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য জেবা খানের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন- মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ, মহানগর উত্তরের সাধারণ সম্পাদক আমেনা খাতুন ও মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক শামসুন নাহার বেগম প্রমুখ।