দেশের নয় প্রবৃদ্ধি বেড়েছে আ’লীগ নেতাদের; মির্জা ফখরুল

0

জিসাফো ডেস্কঃ বাংলাদেশের নয়, আওয়ামী লীগের নেতাদের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বেড়েছে বলে মন্তব্য করে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আজ বাংলাদেশের অর্থনীতি নিয়ে মিথ্যাচার করে বলা হচ্ছে, দেশের প্রবৃদ্ধি বাড়ছে। সেই প্রবৃদ্ধি কার? প্রবৃদ্ধি বেড়েছে, আওয়ামী লীগের নেতাদের। তারা আজ দুর্নীতি করে তাদের প্রবৃদ্ধি বাড়াচ্ছে। আর সাধারণ মানুষের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি দিন দিন কমে যাচ্ছে।

আজ শনিবার দুপুরে ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা পরিষদ মিলনায়তনে ছাত্রদলের জেলা সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মির্জা ফখরুল এ মন্তব্য করেন।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, দেশের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক অবস্থা অত্যন্ত নাজুক। কিছু মানুষ আছেন যাঁরা এ দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা বেশ ভালো বলে ঢাকঢোল পেটান। আসলে অর্থনৈতিক অবস্থা একেবারেই ভালো নয়। আজ মোটা চালের কেজি ৪০ টাকা। এটা অসহনীয় ব্যাপার। তিনি বলেন, এ সরকার জনগণের সমর্থনে ক্ষমতায় নেই। এ কারণে তারা সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন দিতে চায় না। আজ দেশের মানুষ অপেক্ষা করে আছে, কখন একটা নিরপেক্ষ, নির্দলীয় সরকার ও নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে। তারা ভোট দিয়ে পরিবর্তন আনবে, জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করবে।

প্রধান বিচারপতিকে নিয়ে আইনমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে ফখরুল বলেন, ‘মাননীয় প্রধান বিচারপতির বক্তব্যে সরকারের আঁতে ঘা লেগেছে। এখন আইনমন্ত্রী দুঃখজনকভাবে বলছেন, প্রধান বিচারপতি বেশি কথা বলছেন। আমরা ধিক্কার জানাই আইনমন্ত্রীর এ বক্তব্যকে।’

প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরের সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, প্রধানমন্ত্রী কিছুদিন আগে ঢাকঢোল পিটিয়ে ভারতে গেলেন। অনেক কিছু নিয়ে ফিরে আসবেন বলে গেলেন। কিন্তু তিনি ফিরে এসেছেন শূন্য হাতে। লবডঙ্কা পেয়েছেন। অন্যদিকে দিয়ে এসেছেন অনেক কিছু।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আজকে আওয়ামী লীগের নেতারা শঙ্কিত, বিএনপি যদি নির্বাচনে আসে, আর যদি ন্যূনতম সুষ্ঠু নির্বাচন হয় তাহলে তাদের ক্ষমতায় আসার কোনো সম্ভাবনা নেই। এটা আমার কথা নয় পত্রিকার কথা।’ তিনি ছাত্রদলের নেতা-কর্মীদের অনুপ্রাণিত করতে গিয়ে বলেন, এ দেশে যা কিছু পরিবর্তন হয়েছে, গণতন্ত্রের জন্য, স্বাধীনতার জন্য, কল্যাণের জন্য—তার সবই করেছে এই ছাত্ররা। এ কারণে আজকের ছাত্রদের আরও বেশি করে সুসংগঠিত হতে হবে, শক্তিশালী হতে হবে, দৃঢ়চেতা হতে হবে এবং আপসহীন হতে হবে গণতন্ত্র রক্ষার ক্ষেত্রে।

এর আগে বেলা একটার দিকে জাতীয় সংগীতের তালে তালে জাতীয় পতাকা ও সাংগঠনিক পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে সম্মেলনের সূচনা হয়। পরে দেড়টার দিকে সম্মেলন উদ্বোধন করেন কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সভাপতি রাজিব আহসান। উদ্বোধনের পর জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম সাংগঠনিক প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন। এ ছাড়া ঠাকুরগাঁও জেলা বিএনপির আহ্বায়ক তৈমুর রহমান, কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য মির্জা ফয়সল আমিন প্রমুখ বক্তব্য দেন। বিকেল পৌনে চারটার দিকে রাজিব আহসান বর্তমান জেলা কমিটি বিলুপ্ত করে প্রথম অধিবেশনের সমাপ্তি ঘোষণা করেন।