ডুবে আছে রাজধানীর ফুটপাতও, নদী আর রাজপথ মিলে একাকার

0

দুই দুইজন অনির্বাচিত নগর পিতা থাকা সত্ত্বেও রাজধানীর রাজ পথ আর নদীর ভেতরে কোন পার্থক্য থাকে না একটু বৃষ্টিতে ।  গেল কয়েকদিনের ভ্যাপসা ঘরমের পর গতকাল থেকেই  আকাশের কোনে দেখা দিল মেঘের আনাগোনা।  কিন্তু দুপুরের আগের ভারী বর্ষণের ফলে তলিয়ে গেল রাজধানীর ঢাকার সকল রাজপথ, ফুটপাত।

রোববার দুপুরের দিকে শুরু হওয়া বৃষ্টি আজ সোমবার সকালেও চলতে থাকলে পথঘাট পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় দেখা দিয়েছে জলাবদ্ধতা। আর জলাবদ্ধতার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে যানজট ও জনদুর্ভোগ।

রাজধানীর ধানমণ্ডি, নিউমার্কেট, কারওয়ান বাজার, ঝিগাতলা, বংশাল, নয়াবাজার, শান্তিনগর, মালিবাগ, মৌচাক, যাত্রাবাড়ী, সায়েদাবাদ, শাহাবাগ, কাকরাইল, পল্টন, গুলিস্তানের এলাকার সব রাস্তায় তলিয়ে গেছে পানির নিচে। কোথাও এক হাঁটু কোথাওবা তারও বেশি পানিতে তলিয়ে গেছে এসব রাস্তা। কাকরাইল, মালিবাগ, শান্তিনগরসহ আরো কয়েকটি এলাকায় দেখা গেছে শুধু রাজপথ নয় ফুটপাতও ছিল পানির নীচে।

বৃষ্টির পানিতে রাস্তাঘাট তলিয়ে যাওযায় বিপাকে পড়ছেন স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থী ও পথচারিরা। এক হাঁটু ময়লা পানি থেকে নিজের পরিধেয় পোশাটিকে একটু রক্ষা করতে প্যান্টটাকে কিছুটা গুটিয়ে নিয়ে পায়ের জুতা হাতে  উঠিয়ে হেঁটে চলছেন পথচারিরা। ভাঙাচোরা রাস্তা কিংবা খোলা ম্যানহোলের ভয়ে যখন তারা খুব সাবধানে পা চালাচ্ছেন। এরই মাঝে বিপত্তি সাধছে দ্রুত গতির গাড়ী কিংবা তিন চাকার রিক্সাগুলো। তাদের গতির বেগে পথচারিদের পোশাকের বারোটা বাজিয়ে দিচ্ছে ময়লা পানি। ত্যক্ত, বিরক্ত পথচারিরা আপন মনে বকে যাচ্ছেন গাড়ীর ড্রাইভার আর প্রশাসনের কর্তাদের।

বৃষ্টির পানির অজুহাতকে কাজে লাগিয়ে সিনজি ও রিক্সা ভাড়াও বেড়ে গেছে কয়েকগুণ। তাছাড়া কিছু ভ্যান ও রিক্সা রাস্তা পারাপারে করে যাচ্ছে জনপ্রতি ৫ থেকে ১০ টাকা করে। তাদের একজন রিক্সার ড্রাইভার কাদের মিয়া। রাস্তা পারাপারের কাজ করছেন শান্তিনগর মোড়ে। বৃষ্টিতে রাস্তায় পানি বেড়ে গেলে তিনি ভাড়া না নিয়ে পারাপার এর কাজই করে থাকেন। এখানে আয় বেশি হয় বলে জানালেন কাদের।

শুধু রাস্তা কেন, সোহরাওয়ার্দী, রমনা, ওসমানী উদ্যানসহ শহরের বিভিন্ন পার্কগুলোও আজ পানির নিচে। ফেরিওয়ালা ও ছোট–খাটো ব্যবসায়ীদের মালপত্র সব ভিজে একাকার। ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আনিসুল হক ও দক্ষিন সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সাইদ খোকন কে এখন পর্যন্ত কোন পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি।