জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় সর্বোচ্চ আদালত জামিন দিলেও এখনই মুক্তি পাচ্ছেন না দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ।

0

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় সর্বোচ্চ আদালত জামিন দিলেও এখনই মুক্তি পাচ্ছেন না বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এ মামলায় জামিনে মুক্ত হতে বাধা না থাকলেও আরও ৬ মামলায় খালেদা জিয়াকে গ্রেফতার দেখানোয় আপাতত তিনি মুক্তি পাচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন তার আইনজীবীরা।

খালেদা জিয়ার মামলা প্রসঙ্গে তার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া জানিয়েছেন, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে সর্বমোট মামলার সংখ্যা প্রায় ৩৮টি। এর মধ্যে কুমিল্লায় তিন, ঢাকায় দুই ও নড়াইলের একটি মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। এগুলোর মধ্যে কুমিল্লায় একটি বিশেষ ক্ষমতা আইনে, একটি হত্যা মামলা ও অপরটি বিষ্ফোরক আইনের। আর বাকি তিনটি মামলাই মানহানির।

সানাউল্লাহ মিয়া বলেন, এই ছয়টি মামলায় নিম্ন আদালতে আমরা জামিন পাইনি। এখন হাইকোর্টে জামিনের প্রস্তুতি নিচ্ছি। তিনি বলেন, বড় পুকুরিয়া, গ্যাটকো, নাইকো ও জিয়া চ্যারিটেবল মামলায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে প্রডাকশন ওয়ারেন্ট রয়েছে। এগুলো প্রত্যাহারের আবেদন করা হবে।

খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, আরও কয়েকটি মামলায় জামিন নিতে হবে। সরকার যদি অশুভ প্রচেষ্টা না চালায় তাহলে খালেদা জিয়া এসব মামলায় জামিন নিয়ে দ্রুতই ছাড়া পাবেন।

ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, আপিল বিভাগ জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় তার জামিন বহাল রেখেছেন। এখন নিম্ন আদালতে জামিন পেতে আমাদের খুব বেশি অসুবিধা হবে না। অতি দ্রুত এই মামলাগুলো জামিন পাওয়ার পর বেগম জিয়া আমাদের মাঝে ফিরে আসবেন বলে আশা করি।

সাবেক আইন মন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ বলেন, এই মামলায় যেহেতু সর্বোচ্চ আদালত তাকে জামিন দিয়েছেন। সে ক্ষেত্রে এই রায়ের কপি জেলে গেটে নিয়ে গেলে তিনি মুক্তি পাবেন। কিন্তু যদি অন্য মামলায় তাকে আটক দেখানো হয় তাহলে সেসব মামলা থেকেও তাকে জামিন নিতে হবে। তবেই তিনি মুক্তি লাভ করবেন।

বুধবার জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন বহাল রাখেন আপিল বিভাগ। একই সঙ্গে আগামী ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে খালেদা জিয়ার করা আপিল নিষ্পত্তি করতে হাইকোর্টকে নির্দেশ দিয়েছেন আপিল বিভাগ
উতস-আমাদের সময়.কম