জঙ্গীবাদে কারা জড়িত এটার চিহ্নিত করে নির্মূল করার ক্ষেত্রেও সরকার আন্তোরিক নয়

0

জিসাফো ডেস্কঃ আওয়ামী লীগ সরকার নিজেদের অবৈধ ক্ষমতাকে চিরস্থায়ী করার জন্য জঙ্গীবাদকে জিয়ে রাখতে চায় বলে দাবী করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ। শনিবারে জাতীয় প্রেস ক্লাবে সাংবা‌দিক‌দের তিনি এ দাবি করেন।

রিজভী বলেন, সরকার জঙ্গীবাদ নিয়ে আন্তরিক নয়। প্রকৃত অর্থে কারা জঙ্গীবাদের সাথে জরিত হচ্ছেন বা কারা এর জন্য দায়ি এটার চিহ্নিত করে নির্মূল করার ক্ষেত্রেও সরকার আন্তোরিক নয়। সরকার এক্ষেত্রে কারযকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে রাজি নয়। সরকার এই সমস্ত জঙ্গীবাদকে জিইয়ে রাখতে চায়। কারণ এই সমস্ত ধোয়াসা তুলে নিজেদের ক্ষমতাকে টিকিয়ে রাখাটাই মূল বিষয়।

দেশে একের পর এক জঙ্গীহামলা এবং গতকাল আশকোনায় র‌্যাবের হেটকোর্টারে বোমা হামলার বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপির এ নেতা বলেন, সরকারের অনেক নেতা, মন্ত্রীরা বলেন তারা নাকি দেশে সস্তি দিয়েছেন, দেশের মানুষকে শান্তিতে বসবাস করার পরিবেশ সৃষ্টি করে দিয়েছেন, তারা জঙ্গী নির্মূল করেছেন। কিন্তু আমরা নির্মূলের কোনো চিহ্ন পেলাম না। কিন্তু আমরা যেটা দেখছি যে সরকারে এই জঙ্গীদের যে অবজেকটিভ বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত জানতে চায় না। তারা অন্যের উপর দোষ চাপাতেই ব্যস্ত। গতকাল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, জঙ্গী হামলায় বিএনপি মদদ দিচ্ছে। কিন্তু আমরা বারবারই চাই জঙ্গী নির্মূল করতে। এর জন্য সরকারকে আমরা অনেকবার আহ্বান জানিয়েছে। কিন্তু সরকার এটিকে জিয়ে রাখতে চায় তাদের ক্ষমতাকে দীর্ঘায়িত করার জন্য।

১৪ টি দেশের সন্ত্রাসবাদ বিরোধ একটি সম্মেলন সিঙ্গাপুরের বিখ্যাত গবেষক রোহান বুনারত্নে বলেছিলেন, গুলশানের হলিআর্টিজানের হামলায় আইএসের সম্পৃক্ততা আছে কিন্তু বাংলাদেশ সরকার সব সময় বলছেন, যে এটি হচ্ছে হোম গ্রোথ। স্বদেশ জাত। এটির সাথে বিদেশীদের কোনো সম্পর্ক নেই। কিন্তু যারা টেরোরিজম বিষয়ে গবেষণা করেন তারা বলছেন যে এটির সাথে আইএসের সম্পর্ক আছে। কিন্তু সরকার এই বিষয় নিয়ে বস্তুনিষ্ঠ উপসংহারে আসতে চায় না। তারা মনে করছে যে তারা যেটা বলছে সেটাই সঠিক।

বিএনপি কি মনে করে দেশে আইএস রয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা সরকারে নেই, সরকারের বহু ইন্সট্রুমেন্ট আছে। সরকার তো অনেক দেশকে নিয়ে অভিযোগ করেন। একজন সত্য নিষ্ঠ গবেষক মানুষ তিনি মিথ্যা কথা বলবেন কেন। তিনি (গবেষক) তো ফিল্ট থেকেই তথ্য উপাত্ত নিয়েই কথা বলেছেন। সরকারের দায়িত্ব এই যে আইএসের সম্পৃক্ততা নিয়ে কথা গুলো আসছে এগুলো আমরা ভেবে দেখি। আসলে যোগসূত্র আছে কি না। কিন্তু তাদের যে পূর্বধারণা সেই ধারণাতেই তারা অটল আছে। যা কিছু হচ্ছে এটি জেএমবি বা নিউ জিএমবি, এটি হোমগ্রোথ। সরকার প্রকৃত তথ্য উৎঘাটন করছে না। আর এ জন্যই মানুষের মনে প্রশ্ন উঠছে যে এটি নিয়ে সরকার নটক করছে কিনা।

বিএনপির উপর জঙ্গীবাদের অভিযোগ দেয়া হয় মন্তব্য করে তিনি বলেন, বিএনপির উপর অভিযোগ দিয়ে, কারো উপর দোষ চাপিয়ে দিয়ে, এটার আপনি (প্রধানমন্ত্রী) সূরহা করতে পারবেন না। বরং এটা আরো ডাল-পালা বিস্তার করবে। এই ডাল-পালা বিস্তারের জন্য আজকে সরকারের বক্তব্য, কর্মকান্ড এবং সরকারের কথাবার্তা নিয়ে মানুষ কি বলছে? দেশের মানুষ মনে করছে সরকার জঙ্গীবাদ নিয়ে চাপাবাঁজি করছে।

এসময় তিনি সরকারের উদ্দেশে বলেন, এই ধরনের বিতর্ক, বিভ্রান্তি তৈরি না করে আসুন বস্তুনিষ্টভাবে এই বিষয়টি আমরা পরযালোচনা করে কোথায় কোথায় এর গুপ্ত ঘাটি আছে, কারা কিভাবে এখানে জরিত তাদের খুজে বের করা কোনো কঠিন বেপার নয়।