গনতন্ত্রের হত্যাযজ্ঞ, ডাইনী, রক্তচোষা, লেডি হিটলারের চক্রান্তসমূহ, সংলাপ প্রস্তাবনা আর বর্তমান সংকট উত্তরনে আমাদের করনীয় কি কি – ১ম পর্ব 

0

গনতন্ত্র আমাদের প্রানের স্পন্দন। স্বাধীকার মানেই গনতন্ত্র। তাই স্বাধীনচেতা যে কোন মানুষই গনতান্ত্র চায় নিবিড়ভাবে। এটাই আজকের সমকালীন সভ্যতার মাপকাঠি। ধনী -গরিব, উঁচু -নিচু, ধর্ম, বর্ন, স্থান, কাল, গোত্র, শিক্ষিত অশিক্ষিত, নানান জাতি, উপজাতি নির্বিশেষে সারা ৃথবীতে আজ গনতন্ত্রের জয়জয়কার, গনতন্ত্রের মাধ্যমেই আসছে মুক্তি, সত্যিকারের বিশুদ্ধ খাঁটি গনতন্ত্রের মাধ্যমে একজন গরিব ব্যক্তিও প্রেসিডেন্ট বা প্রধানমন্ত্রী হতে পারে , আর এটাই গনতান্ত্রিক ব্যাবস্থার চিরঅমলিন, অত্যাশ্চর্য সৌন্দর্যরূপ।

যুগে যুগে কাল থেকে মহাকালে এএই গনতান্ত্রিক ব্যবস্থায় উত্তরনের জন্য, গনতন্ত্রের মধু পানের জন্য লক্ষ্, কোটি,মিলিয়ন, মানুষ আত্নুত্যাগ করেছে। আজো দেশে দেশে গনতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে পাবার আশায় হাজারো, লক্ষ মানুষ জীবন দিচ্ছে। আমরা স্বাধীন বাংলাদেশের নাগরিক। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের মূল ১ নম্বর চেতনাইই ছিল গনতান্ত্রিক মুক্তি, কিন্তু আজ অত্যন্ত দু:খের সাথে বলতেই হয় আজ বাংলাদেশে গনতান্ত্রিক ব্যবস্থা বিদ্যমান নেই, আছে একনায়কতন্ত্র। আছে এক ব্যক্তি, এক দলের শাসন যার নাম স্বৈরাচার, স্বৈরতন্ত্র। যা আমাদের অর্থনীতি, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ধর্মীয়, পারিবারিক, রাষ্ট্রীয়, ব্যক্তিগত জীবনকে করেছে অসহনীয়। আজ রাজপথে মানুষের মৃত্যু একটি পাখি মারার চেয়েও সহজতর। আজ ক্ষমতাবানদের নারী, শিশু ধর্ষন যেন লিংগ উত্থানের চেয়েও সহজতর। আজ মাতৃগর্ভের শিশুরাও নিরাপদ নয়, যে কোন মুহূর্তে যে কোন জায়গায়, যে কোন ভাবে গোলাগুলি হয়ে যে কেউ মরতে পারে, তাহলে জাতির বিবেকের কাছে আমার প্রশ্ন :মানুষের খুন, গুম, ক্রসফায়ার আর গুলি করে রাজপথের লাশই যদি প্রতিদিনের সংবাদের শিরোনাম হয় তবে এই স্বাধীনতা দিয়ে কী লাভ হল? এই স্বাধীনতা আমরা চাইনা, চাইনা, চাইনা !

download (8)

আলোচনার শুরুতেই আসুন অতি সংক্ষেপে জেনে নেই গনতন্ত্র কাকে বলে আর গনতন্ত্রের শুরুটাই কিভাবে হল : অক্সফোর্ড অভিধানে বলা আছে : Democracy, or democratic government, is “a system of government in which all the people of a state or polity … are involved in making decisions about its affairs, typically by voting to elect representatives to a parliament or similar assembly. as defined by the Oxford English Dictionary. ( অর্থ : গনতন্ত্র এমন একটি স্বচ্ছ, সুন্দর ব্যবস্থা যা সমাজের সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টাকে সরাসরি ভোটের মাধ্যমে সম্পুর্ণ স্বাধীনভাবে মানুষ তার মতামত প্রদান করতে পারবে আর সে তার অধিকারকে নিজে নিজেই প্র‍য়োগ করে সংসদ গঠন করতে পারবে যেখানে জনগণের মতের সরাসরি প্রতিফলন ঘটবে )।

Untitled-21

পাঠক বন্ধুরা, গনতান্ত্রিক ব্যবস্থা শুরুটাই হয়েছে সেই ৭৭৬ খ্রীষ্টপূর্বে প্রাচীন গ্রীসে, সেখানে স্পার্টা পদ্ধতিগতভাবে চালু ছিল সমাজের সুষম শ্রেণীবিন্যাসের জন্য, লিকারগাস (Lycurgus) প্রথম আইনবিদ ও বিশেষজ্ঞ যিনি স্পার্টান গঠনের আইনত দিকে বেশ সাহায্য করেছিলেন। তিনিই গনতান্ত্রিক ইতিহাসের প্রথম আইনবিদ। যিনি ৫৬৭ খ্রীষ্টপূর্বে এই বই লেখেন, তার লিখিত আইন বইয়ের নাম মহান রেট্রা (Great Rhetra ). তার গঠিত স্পার্টানে নারীর সমঅধিকার নিশ্চিত করা হয়েছিল, তখনি নারীরা বিলাসবহুল গহনা , প্রসাধনী, বিলাসবহুল যানবাহন বা বিলাসবহুল উপঢৌকন পেত। এই স্পার্টান পদ্ধতিকে প্রখ্যাত সুপ্রাচীন ইতিহাসবিদ হিরোডোটাস (Herodotus) , জোনোফন (Xenophon) , আর দার্শনিক এরিষ্টটল, প্লেটো উচ্চমাত্রায় প্রশংসা করেছিলেন। এরপর দার্শনিক ও সমাজচিন্তক সলন ( Solon ) গ্রীক সমাজকে চার ভাগে ভাগ করেন, প্রত্যেক ভাগের লোকজন সরাসরি ভোটে তার প্রতিনিধি নির্বাচন করতো। যা গনতান্ত্রিক ইতিহাসের আরেকটি মাইলফলক। আর মেসোপটেমিয়া আর মহেঞ্জোদারো সভ্যতায় জ্যাকবসন, ক্যাটালেমিন, স্টিফেন থ্রুডিস্কাস প্রাইমারী বা প্রাথমিক মৌলিকত গনতন্ত্র চালু করেন। যা নিচে এভাবেই বলা আছে :

Babylonian Mesopotamia, renowned scholar Thorkild Jacobsen used Sumerian epic, myth, and historical records to identify what he has called ,primitive democracy.  By this, Jacobsen means a government in which ultimate power rests with the mass of free male citizens, although “the various functions of government are as yet little specialised and the power structure is loose”. In early Sumer, kings like Gilgameshdid not hold the autocratic power that later Mesopotamian rulers wielded. Rather, majorcity-states functioned with councils of elders and “young men” (likely free men bearing arms) that possessed the final political authority, and had to be consulted on all major issues such as war.

গ্রীসের রাজধানী এথেন্স এ অনেক জ্ঞানী গুনি ব্যক্তিরা বছরের পর বছর ঘুরে, গবেষণায় মনোনিবেশ করে একটি সুন্দর সুস্থ গনতান্ত্রিক ব্যবস্থার গোরাপত্তন করেন। এই কাজে সক্রেটিস, এএরিষ্টটল, প্লেটো ছিলেন এক নম্বরে মূল উদ্যোক্তাগন।

Within the Athenian democratic environment, many philosophers from all over the Greek world gathered to develop their theories.  Socrates was the first to raise the question, further expanded by his pupil Plato, about the relation/position of an individual within a community.  Aristotle continued the work of his teacher, Plato, and laid the foundations of political philosophy. The political philosophy created in Athens was, in the words of Peter Hall, “in a form so complete that hardly added anyone of moment to it for over a millennium.

ব্রিটিশদের গনতন্ত্রের বিকাশ :

300px-Magna_Carta

(১২১৫ সালে রাজা জন তার অধীনস্ত জ্ঞানী গুনি দ্বারা চরম চাপের মুখে ম্যাগনাকার্টাতে সাক্ষর করেন যাতে করে উচ্চ নিম্ন কক্ষের সকল কর্মচারী ও অধীনস্ত জনগন আরো স্বাধীনতা ভোগ করতে পারে।

download (9)

এরপর ১৬৪৯ সালে রাজা চার্লস -১, পরে ক্রোমওয়েল, পরে চার্লস -২, ১৬৮৫ সালে জেমস – ২, ১৬৮৯ সালে ম্যারি -২, সর্বশেষ ১৭২১ সালে জর্জ -১ সংসদে আইন পাশ করেন যে, সরাসরি জনগনের ভোটে নির্বাচিত প্রতিনিধিই সরকার গঠন করবেন সেই মতে ১৭২১ সালে রবার্ট ওয়ালপোল ব্রিটিশদের প্রথম নির্বাচিত প্রতিনিধি যিনি সরকার প্রধান হন, সর্বশেষ ব্রিটিশ পরিপূর্ণ গনতন্ত্র আসে ১৯১৮ সালে পার্লামেন্টারি এক্ট পাশের মাধ্যমে ) যার ইংরেজি লেখা নিম্নরুপ

Untitled-13

“In 1215, King John was forced by the nobles to sign Magna Carta, which placed limits on the king’s power and demanded that he seek the consent of the lesser noblemen over whom he governed before he could tax them. In the early 14th century, the need to consult the noblemen for their consent in an organized fashion had led to the development of a permanent Parliament. In 1649, King Charles I was executed on order of parliament for raising taxes, dissolving parliament for years and starting a civil war. The monarchy was replaced by a republic headed by Oliver Cromwell who proved to be a worse dictator than any King. After Cromwell’s death, Charles II (son of the executed monarch) was asked by parliament to become King. In 1685, Charles II died without an heir and his brother, James II, became King. James proved to be as tyrannical as his father, and in 1689parliament removed him from power and asked Mary II (James’ daughter) and her husband William of Orange to become King and Queen. It was at this point that Britain became a constitutional monarchy as parliament insisted that almost all executive power, including powers over taxation, be given to parliament, leaving the monarch as a figurehead. The final step in Britain’s move to becoming a full constitutional monarchy took place in 1721, under George I, when a single parliamentarian (Robert Walpole) became head of। government in the office of First Lord of the Treasury, which later became known as “Prime Minister”. By this time Britain had the largest and most powerful Empire in history and the British people were the freest in the world – sadly they didn’t share this freedom with the people of the Empire, which is why it eventurally declined. Finally the democracy came in 1918 with the Representation of the People Act which saw the size of the electorate triple from 7.7 million to 21.4 million. Prior to the passage of this act only 60% of British men had the right to vote and women had no right to vote at all.

download (10)

গনতন্ত্রের আনিন্দ্য সৌন্দর্যরূপ :

Democracy আব্রাহাম লিংকন বলেছেন : গনতন্ত্র হচ্ছে জনগণের দ্বারা, জনগন মাধ্যমে, জনগণের কল্যাণের নিমিত্তে সরকার , U.S. president Abraham Lincoln (1809-1865) defined democracy as: «Government of the people, by the people, for the people» Democracy – Key Elements In order to deserve the label modern democracy, a country needs to fulfill some basic requirements – and they need not only be written down in it’s constitution but must be kept up in everyday life by politicians and authorities: 1. Guarantee of basic Human Rights to every individual person vis-à-vis the state and its authorities as well as vis-à-vis any social groups (especially religious institutions) and vis-à-vis other persons. 2. Separation of Powers between the institutions of the state: # Government [Executive Power], # Parliament [Legislative Power] und # Courts of Law [Judicative Power] 3. # Freedom of opinion, 4. # Freedom of speech, press and massmedia 5. # Religious liberty 6. # General and equal right to vote (one person, one vote) 7. # Good Governance (focus on public interest and absence of corruption)

Justice injustice scales-violate20130528204157

১. গনতন্ত্রের সৌন্দর্য মৌলিক মানবাধিকার সংরক্ষন :

আমার প্রশ্ন : আমার দেশে আদৌ আছে কি???? , সারাদেশে গত ৭ বছরে ৩৪৪৩ জন খুন, নন্দিত জননেতা ইলিয়াস আলী, চৌধুরী আলম সহ ২৪৮ জন গুম, ১১৫৫৮ জন ধর্ষন ( সূত্র: জাতিসংঘের মানবাধিকার রিপোর্ট) , ৬৪৪৮ জন বেওয়ারিশ লাশ (সুত্র : আঞ্জুমান এ মফিদুল ইসলাম) , রানা প্লাজায় ১৫০০ জনের অধিক খুন, তাজরিনের ৭২৬ জনের মনুষ্য কাবাব, বিশ্বজিৎ হত্যা, নারায়নগঞ্জে ১১ হত্যা, ৩২০১ টি হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের ঘর ভাংচুর, ডাকাতি ও সম্পদের লুন্ঠন, কক্সবাজারের রামুতে বৌদ্ধমন্দির একদম পুড়ে অংগার এগুলো কোন মানবাধিকার? এগুলোই কি মমুক্তিযোদ্ধার স্বপ্ন ছিল? এটাই কি আওয়ামীলীগ ইবলিশ লীগের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা? মুজিব কি গাঁজা খেয়ে এই মানবাধিকারের স্বপ্ন দেখেছিলেন? এইজন্য কি দেশ স্বাধীন হয়েছিল? আজ মমুজিব কন্যা যা করছেন তা দেখে মুজিবের কবর আজাব বাড়ে আর হাসিনার এই কান্ড দেখে দেখে হিটলারও এখন কবরে বসে মিটিমিটি হাসে আর বলে যাক আমার চেয়েও খারাপ কুকুর দুনিয়াতে আছে।এখন দুনিয়ার মানুষ আমার পরিবর্তে হাসু নামের কুকুরকে ঘৃণা করবে।

11138535_1402330130085692_1694962048726183163_n

বিরোধী দলের মিছিল দেখলেই গুলি, এটা কোন মানবাধিকার? গত ৭ বছরে ৫ লক্ষ মামলা, ৪৭ লক্ষ আসামী শুধু বিরোধী দল দমনে, এটা কি হলোকাষ্ট? তাই নয় গত ৬ দিনে ৬ হাজারের উপর গ্রেফতার, তাদের কি দোষ? আমি মানছি ২/৪ জন দোষে দোষী হতে পারে কিন্তু বাদ বাকী ৫৯৯৬ জন তো নির্দোষ। তারা কি এই দেশের দ্বিতীয় শ্রেণিপেশার নাগরিক? আজ তারা কি এদেশের নাগরিক নন? ন্যায়বিচার কোথায় আজ? এটিই কি মৌলিক মানবাধিকার না হাসিনাধিকার?? আজ সংবিধান কি আওয়ামী দলিল? আজ দেশি বিদেশী মিডিয়া, কূটনৈতিক ব্যক্তি, সুশিল সমাজ, আন্ত্রজাতিক সম্প্রদায় কুম্ভকর্ণের ঘুমে নিশ্চুপ কেন? আজ বাংলাদেশের এই অবস্থার জন্য তারাও কি দায়ী নন?

২. গনতন্ত্রের দ্বিতীয় সৌন্দর্য হচ্ছে আইন, বিচার ও নির্বাহী বিভাগের ক্ষমতার ভারসম্য ও যৌক্তিক জবাবদিহি :

11150469_803031553084864_572421773246969542_n

পাঠকগন, আপনারাই নিজের বিবেকের কাছে জিজ্ঞেস করুন, আজি বাংলাদেশে এই তিন বিভাগ কি স্বাধীণ আছে, এদের মধ্যে ক্ষমতার ভারসম্য আছে? আজ বাংলাদেশ মানেই হাসিনা, হাসিনা মানেই বাংলাদেশ, তাহলে সংসদের কি দরকার আছে? যেখানে আইনের শাসন নেই, বিচার বিভাগ হাসিনার হাতের পুতুল সেখানে সংসদ চলার আদৌ কি প্রয়োজন আছে? টিআইবির মতে, সংসদ এখন পুতুল নাচের আড্ডাখানা। এই দু:খ কোথায় রাখি? আজ স্বাধীনতার ৪৪ বছরেও যদি আমরা সংসদীয় গনতন্ত্র গঠন করতে না পারি, তাহলে ৩০ লক্ষ শহীদ কেন হলো? তাহলে কেন ৩ লক্ষ মা বোনের ইজ্জত লুন্ঠন হল?? এই বাংলাদেশ কি মুক্তিযোদ্ধারা চেয়েছিলেন? প্রতিমিনিটে সংসদে খরচ হয় ৩ কোটি ২০ লক্ষ টাকা, এই টাকা কার? এই টাকা জনগণের ট্যাক্সের টাকা, এই টাকা আমার ক্ষেতে খামারে কষ্ট করে কাজ করা কৃষকের টাকা, এই টাকা আমার কুলি মজুর, শ্রমিক ভাইদের কষ্টের ঘামের অর্জিত টাকা। আর সেই টাকা দিয়ে সংসদে মমতাজ নামক নিম্নশ্রেণীর বেশ্যার গানের আসর বসে আর লেডি হিটলার বসে বসে শুনে। হায় রে সংসদ, হায় অভাগা জাতি ! আজ সংবিধানের ৫৫(গ), ৫৬, ৫৭ ধারা ৫৮ (ক,ঙ), ৫৯, ৭০ ধারা যেখানে আছে সেখানে হাসিনা যা বলবে তাই তো হবে, সব ক্ষমতা হাসিনার। সেইজন্য ড.কামাল, ব্যারিস্টার রফিকুল হক আক্ষেপ করে বলেছিলেন : বাংলাদেশের সংবিধানের হাসিনাকে যত ক্ষমতা দেয়া তত ক্ষমতা দুনিয়ার কোথাও কোন রাজা বাদশাহ বা প্রেসিডেণ্ট, প্রধানমন্ত্রীর নেই, যেন হাসিনাই সৃষ্টিকর্তা!  ( নাউযুবিল্লাহ) আর সেজন্য এম পি মন্ত্রীর একই কাজ, প্রধানমন্ত্রীর বন্দনা করা, তাই তো টিআইবির রিপোর্ট এ বলা হয়েছে সংসদে গত অধিবেশনে ৭২৩৮ মিনিট প্রধানমন্ত্রীর বন্দনায় ব্যয় হয়েছে আর বিরোধী নেত্রীর বিরুদ্ধে চরমতম অশ্লীলতাপূর্ণ শব্দ, নোরাং, কুরুচিপসম্পন্ন বিষেদাগার হয়েছে ৭১১৩ মিনিট, বন্ধুরা এখন আপনারাই বলুন, এই দেশটাকী পতিতালয়?? তাহলে মহান জাতীয় সংসদে বসে দেশের জনগণের কথা না বলে বিরোধী দলের ( সংসদের বাহিরের) কথা, নোংরা কথা বলা কোন ধরনের লোকেরা। বলে? শহিদ জিয়ার পরিবারের সমালোচনা আর তাদের পরিবারের কথা বিকৃতি করে কথা নোংরা ভাষায় না বললে যেন উনাদের পাঁয়ুপথে চুলকায়, মনে হয় সাহারা হিজরার মত সবার এইডসের রোগ ধরেছে। নাকি তসলিমার মত যোনীপথে বাকশালী চুলকানির উপদ্রুব হয়েছে? হাসিনার যখন যা মনে হবে তাই আইন। তাই আমি হাসিনাকে পরামর্শ দিচ্ছি : যদি আজীবন ক্ষমতাই চান, তাহলে ২ টি আইন করুন

হাসিনাতন্ত্র আইন :১   যুগ, যুগান্তরে কাল থেকে মহাকালে হাসিনা ও তার বংশধরাই দেশ চালাবে। সেক্ষেত্রে অটিষ্টিক, তথ্যবাবা থেকে শুরু করে, জারজ সন্তান, পাগলী, ইহমহুদী ওভারমায়ার থেকে শেখ এর সকল বংশধর বংশানুক্রম অনুযায়ী আর শেখেই ভরপুর থাকবে বাংলাদেশের মসনদ। নো চিন্তা ডু ফূর্তি

হাসিনাতন্ত্র আইন :২  নো নির্বাচন : যেহেতু নির্বাচন হলেও বিশেষ কলে কৌশলে হাসিনা :জিতবেন আর সত্যিকারের ভোট না দিয়ে ৫ই জানুয়ারীর মত কুত্তা মার্কা নির্বাচন নিতে হয়, ভোট না হলেও ১৫৪ জন অটো :এম,পি হয়ে ছাগলের ৩ নম্বর বাচ্চার মত :নির্লজ্জ, কদাকার, ঘৃণ্য লাফালাফি করা হয়, সেই জন্য বাংলাদেশের সংসদ, নির্বাচন কমিশন, আইন বিভাগ বিলুপ্তি করা হবে, এতে দেশে ১৮ হাজার কোটি টাকা এক বছরে বাচবে। সেই টাকা গরিবের মাঝে সমাজগঠনমূলক কাজে দিলেও হতো । সেই মন্ত্রনালয় গুলো বাতিল করে হাসিনা কমিশন চালু করা হবে, যেই কমিশনের কাজই হবে সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত হাসিনাময় বাংলাদেশ হবে, অনেকে তো আবার নারায়নগঞের গডফাদার শামিম ওসমান সংসদে এত তৈলমর্দন করলেন হাসিনাকে ( কোথায় তৈলমর্দন করেছেন তা বলা যাবেনা, বুঝে নিতে হবে) বলে ফেলেছেন ,হাসিনা এখন অলি আউলিয়া পর্যায়ে চলে গেছেন। তিনি নাকি বড় পীর এখন আব্দুল কাদের জিলানীর পর্যায়ের ( নাউযুবিল্লাহ)

৩.গনতন্ত্রের তৃতীয় সৌন্দর্য হচ্ছে  মতামত প্রকাশের স্বাধীনতা:

ANISUL

বন্ধুরা, আপনারা বলুন, স্বাধীণ মত প্রকাশের মাধ্যম কি আছে? গনতান্ত্রিক ব্যবস্থার বিন্দুমাত্র অবশিষ্ট নেই, আজ কি আজব দেশ যেখানে মানব বন্ধন এর মত চিরশান্তিপূর্ণ সমাবেশ করতেও গোপালিশ এর অনুমোদন লাগে, এটাই কি গনতন্ত্র? এজন্য বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর, শহিদ প্রেসিডেন্ট জিয়া, তাজউদ্দীন, বংগবীর কাদের সিদ্দিকি, মেজর জলিল, সহ লক্ষ লক্ষ মুক্তিযোদ্ধা জীবনবাজি যুদ্ধে গিয়েছিল? তাহলে আইয়ূব, ইয়াহিয়া আর হাসিনার মধ্যে পার্থক্য কই ??? তাহলে আমরা কি আদৌ বলতে পারি যে, আওয়ামীলীগ মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের দল? না না, আওয়ামীলীগ একটি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ব্যবসায়িক দল, আজ রাজপথে একটি মিছিল বের হতে দেয়না, এটাই কি গনতন্ত্রের নমুনা? হে জাতি, এর জবাব কই? আমরা এই ৪৪ বছরে এগুচ্ছি না পিছাচ্ছি? আমরা কি সেই আইয়ামে জাহিলিয়াতে ফিরে যাচ্ছি? আজ ইন্টারনেট / ফেসবুক নিয়ন্ত্রন করতে চাচ্ছেন সরকার, আবার গত পড়শুদিন শুনলাম ভাইবার, হোয়াটস আপ বন্ধ করা হবে, এতে করে কি সংগ্রামকে জনতাকে থামানো যাবে? আজ মতামত প্রকাশের স্বাধীনতা কই? এটা তো গনতন্ত্র নয়, এটা হাসিনাতন্ত্র. এর বিরুদ্ধে তরুন সমাজ জাগ্রিত হবে কি?

৪.গনতন্ত্রের চতুর্থত স্তম্ভ হচ্ছে সাংবাদপত্র, সাংবাদিক ও মিডিয়ার স্বাধীনতা:

images (2)

এই সংবাদের, সাংবাদিকতার, মিডিয়ার স্বাধীনতা একদম নেই, এগুলো হাসিনার মাসিকের রক্তের মত ধুয়ে মুছে তার যোনী থেকে বের হয়ে গেছে কবেই। এখন সে মেনোপোজে আছে। মিডিয়াতে তাই বলা হয় যা সরকার বলতে বলে। টক শোতে কারা যাবে তা সরকার আর ডিজিএফ আই নির্ধারনন করে দেয়। আগামীকাল সংবাদপ্রচার কি হবে তা আজই ঠিক করে দেয়, কোন সংবাদপত্র সরকার এর বিরুদ্ধে লিখলেই রাষ্ট্রদ্রোহী মামলা, সরকারী বিজ্ঞাপন বন্ধ, আর সংবাদপত্রের প্রেসের অফিসে তালা ঝুলানোর চেষ্টা আর মাগুরলীগের হুমকী তো আছেই, আর উপরে ইনু নামের মুচি, নিকৃষ্টতর নর্দমার কীট টো আছেই। উনি কিছুদিন পর পর পত্রিকা অফিসে আর মিডিয়া অফিসে ঢু মারেন আর বাকশালী আচরন করে বলে আসেন ,সংবাদপত্র আগুনসন্ত্রাসী, জংগীবাদ প্রশ্রয় দেবেনা,  এই কথা দিয়ে উনি পরোক্ষভাবে বুঝাইতে চেয়েছেন , বিরোধী দলের কথা প্রচার করা যাবেনা, আমরা বাংালার জনগন সবই বুঝি ইনু কুত্তা, সময় হলে আমজনতা সব কড়ায় গন্ডায় আদায় করে নিবে। আজ আমারদেশ, নয়াদিগন্ত, ইসলামি টিভি, চ্যানেল ওয়ান বিনা কারনে বন্ধ, কেন? এর নামই কি স্বাধীনতা? আজ ঢাকার প্রেসক্লাব আওয়ামীলীগ এর দখলে। এটাই কি সম্ভব? ভাবতে ঘৃনাই লাগে, এরাই নাকি মুক্তিযুদ্ধের প্রতিনিধিত্তকারী দল, আসলেই কি তাই? আপনারা কি বলেন ? প্রখ্যাত সাংবাদিক এবিএম মুসা যথাযথভাবেই বলেছেন : আজকের আওয়ামীলীগ দেখলেই মানুষ বলে ঊঠে তুই চোর , আজ সাংবাদিক তোজাজ্জেল হোসেন মানিক মিয়া, আহমেদ ছফা, মশিউর রহমান যাদু মিয়া, মাহবুবুল আলম, গিয়াস কামাল চৌধুরী, মাহবুবুর রহমান, মতিউর রহমান এসব প্রথিতযশা সাংবাদিকগন আজকের সংবাদ জগতের এই হাওল দেখলে আমি নিশ্চিত তারা হার্টফেল করে মারা যেতেন। আজ বিনা অপরাধে মাহমুদুর রহমান জেলে, তার দোষ কি? মাহমুদুর রহমান তো ইকোনোমিষ্ট, ইনকিলাব আর জনকন্ঠের রিপোর্ট টাই ছাপিয়েছিল, তাহলে জনকন্ঠ, ইনকিলাব, ইকোনোমিষ্ট কে না জেলে পুরে মাহমুদুর রহমান কে জেলে নেয়ার পরেও কি আইনের শাসন বলতে বা মিডিয়ারর স্বাধীণতা বলতে কিছু বাকী আছে? প্রখ্যাত সাংবাদিক শওকত মাহমুদ জেলে, কেন? কি তার অপরাধ? সাগর রুণীদের হত্যা করার পরেও কেন রিমান্ড নেয়া হলো না জয় বাবাকে?? ( তথ্যবাবা ওরফে জয়গুলু, কারন গুগুলের আসল প্রতিষ্ঠাতা তিনিই , জয় বাংলা রেডিও থেকে প্রচারিত ) জ্বালানী ও খনিজসম্পদ উত্তোলনে অটিক মামা আআর তৌফিক এলাহি গং ১০ হাজার কোটি টাকা ঘুষ খেয়েছিলেন, আর সেই তথ্য আর হাতেকলমে প্রমান ছিল সাগর রুনির কাছে, আর সেইজন্য হত্যা। আজ সাগর রুণীর কন্যা মেঘের খবর কি কোন চেতনাধারি সাংবাদিক রাখেন? আজ সাগর রুনির খুনের বিচার কি কোন বাকশালীর সাংবাদিক চান??? আপনাদের বিবেকের দৈন্যতা দেখে আমার লজ্জা লাগে। আপনারা সাংবাদিকতা না করে আওয়ামীলীগ মাগুরলীগের ক্যাডার হন তাও ভাল যে আমরা বুঝতে পারব আপনারা বেজন্মা, কিন্তু সাংবাদিকতার মহান পেশায় এসে দলান্ধ হয়ে মিথ্যাকে সত্য বানানোর নিষ্ঠুর খেলা দয়া করে বন্ধ করুন।

৫. গনতন্ত্রের ৫ নম্বর সৌন্দর্যময়তা  :

P1_5-6-may-hefajat-flashout

ধর্মীয় স্বাধীনতাকিন্তু অত্যন্ত দুখের সাথেই বলতে হয় এই ধর্মীয় স্বাধীনতা আমাদের একদম নেই, আজ মুসলমানরা সং্খ্যাগরিষ্ঠ হয়েও আশ্চর্যজনকভাবে তারাই আজ সং্খ্যালঘু, , আজ দাড়ি রাখলেই মৌলবাদী, দাড়ি রাখেলেই জামাত শিবির রাজাকার, এটা কী?? এটা কী অমুসলিম দেশ? এটা কি ইহুদি রাষ্ট্র? হতেই পারে কারন তথ্যবাবার শশুড় তো আবার ইহুদি। আজ ঘরে কিংবা মাহফিল বা মসজিদে কোরান হাদিসের বই মানেই জিহাদি বই। আজ ৫/১০ জন মাদ্রাসায় পড়ুয়া ছাত্র একসাথে হাটাহাটি করলেই গোপালি পুলিশের সহযোগীতায়। তার ঠিকানা জেলখানায়… একি বিভৎস সমাজ ব্যবস্থা! শত ধিক্কার জানাই এই সমাজকে! আজ প্রতি বছর বহু হিন্দু ঘর বাডি ভাংগছে যুবলীগ আফ্রিকান মাগুরলীগের রাক্ষসরা কিন্তু মামলা হয় বিএনপি নেতা কর্মীর নামে, কেন হবে এরকম? আজ পর্যন্ত একটি হিন্দু বাড়ির আক্রমন বা ডাকাতির বা সম্পদের লুন্ঠনের বিচার হয়েছে? কেন হয়নি? কারন সবগুলাই লীগ এর সোনার ছেলেরা জড়িত।

1389868973

আজ হুজুর দেখলেই জংগী তকমা দেয়া একটা ফ্যাশনে পরিনত হয়েছে। আজকাল পুলিশ নিজেরা কিছু অকেজো হাতবোমা, কিছু ল্যাপটপ, কিছু বৈদ্যুতিক তার এনে আসামীর বাড়িতে রেখে সবাইকে বলে এরাই জংগি, এরাই সন্ত্রাসী। কিন্তু আমার বিবেক বলে এই গোপালিশ আর তার প্রেতাত্নারাই সবচেয়ে বড ইবলিশ.

৬. গনতন্ত্রের ৬ নম্বর সৌন্দর্যময়তা হচ্ছে :
sangbidhan_89406
সুষ্ঠু ভোটের অধিকার  এই সুষ্ঠু ভোট কি বাংলাদেশে আজ আছে? আজ বাংলাদেশে আছে , হাসিনা তোর জ্বালায় বাচিনা ভোট ** ১৯৮২/৮৩ সালের পরে স্বৈরাচার বিশ্ববেঈমান, বেহায়া এরশাদের সময়েই অনেক ভোট চুরি বা ডাকাতি হয়েছে, ব্যালট এ ছিল মেরেছে, বা ব্যালট উপজেলা পরিষদে বসে ছিল মেরেছে। কিন্তু এরশাদ কখনোই ভোটের আগে প্রার্থীকে গুম করে দিতনা. অথচ আজ হাসিনা এরশাদের চেয়েও বড় স্বৈরাচার। হাসিনা তার মাগুরলীগের মাধ্যমে আর গুন্ডালীগ, চাপাতি লীগ এ দিয়ে জাল ভোট দিতে থাকে ভোট কেন্দ্রের আশেপাশে। ধানক্ষেতে, এমনকি টয়লেটের ভিতরেও চলে জাল ভোট করার অপূর্ব কৌশল…!!!!! হাসিনা ভোটের আগে বিরোধী দলের প্রার্থীকে গুম করে দেয়, হাসিনা বিরোধী দলকে সমূলে নিশ্চিহ্ন করতে চায়। তাই যে কোন নির্বাচন আসলেই গনগ্রেফতার শুরু হয়। এটাই কি ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠিত করা? ১৯৯০ গন অভ্যুত্থানে এরশাদের পতনের পর সবাই ভাবল** এই বুঝি গনতন্ত্র ফিরে এসেছে *** কিন্তু না, কিন্তু না, ৯১ এর পড়ে তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেতা হাসিনা চক্রান্ত করে।
সেই চক্রান্তেরিই ধারাবাহিকতায় ১/১১ হাসিনার সাথে সেই ১/১১ চক্রান্তকারী ফখরুদ্দীন, মইনুদ্দুন, আর জেনারেল মাসুদ এর নাটকে আর ভারতীয়, আমেরিকান সন্মিলিত গোয়েন্দা ষড়্যন্ত্র হচ্ছে ২০০৮ এর নির্বাচন নিয়ে নিয়েছিল।
আর তার পরেই আসে সংবিধানের সংশোধনী, ত্রয়োওদশ, চতুর্থ সংশোধনি আর পঞ্চোদশ সংশোধনী করাই হয়েছে ভোটের অধিকার চিরতরে নস্যাৎ করার ঘৃণ্য চক্রাংন্ত। সংবিধানের সব ধারাকে এমনভাবে সাজানো হয়েছে যে, আজীবন হাসিনাই প্রধানমন্ত্রীত্ব ইচ্চে করিল থাকিতে পারিবে। এতে কারো কোন আপত্তি থাকলেও কিছুইই কিরা যাবেনা।সেনাবাহিনী, বিচারকগন, রাষ্ট্রপতি, আমলারা সব হাসিনার হাতের পুতুল । হাসিনা যা বলবেন তাদেরকে তাই করতেই হবে।
লেখকঃ ডঃ সাইফুল ইসলাম, ক্যালিফোর্নিয়া, যুক্তরাষ্ট্র ।
সম্পাদনাঃ মোঃ মাইনুল ইসলাম, লন্ডন, যুক্তরাজ্য।