গণতান্ত্রিক লড়াই আন্দোলনে অংশ নিতে আপনারা প্রস্তুতি নিন,নজরুল ইসলাম খান

0

জিসাফো ডেস্কঃশিগগির আন্দোলনের ডাক আসবে বলে নেতাকর্মীদের প্রস্তুতি নেওয়ার জন্য আহবান জানিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, গণতান্ত্রিক লড়াই আন্দোলনে অংশ নিতে আপনারা প্রস্তুতি নিন। প্রয়োজনে ঝুকি নিয়ে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে জনগণকে সম্পৃক্ত করে লড়াইয়ের ময়দানে নামতে হবে। এই প্রক্রিয়ারি সাংগঠনিকভাবেসহ সর্ব দিক দিয়ে শুরু হয়েছে। কারণ জনগণ আওয়ামী লীগের বিকল্প হিসাবে বিএনপিকেই মনে করে। আর কেউ নেই।

রবিবার দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি’র (সাগর-রুনি) মিলনায়তনে এক প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু’র নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে ঢাকাস্থ সিরাজগঞ্জ জেলার সাবেক ছাত্রদল নেতৃবৃন্দ এ প্রতিবাদ সভার আয়োজন করে।

তিনি বলেন, বিএনপি গণতন্ত্র ব্যতীত অন্যে কোনা নীতিতে বিশ্বাস করে না বলে ২০০৮ সালে নির্বাচনে অংশ নিয়েছে এই মর্মে যে, একটি অনির্বাচিত ও অগণতান্ত্রিক সরকারের চেয়ে নির্বাচিত সরকার ভালো। পক্ষান্তরে বর্তমান শাসকদল আওয়ামী লীগের এখন অপকৌশল নির্বাচনে নিজেদের পছন্দের ফলাফল নিয়ে আসার অভ্যাসে পরিণত হয়েছে।

নজরুল ইসলাম বলেন, এই সরকার গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না। তাই জনগণের ভোটে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের অর্পিত দায়িত্ব পালন করতে দিচ্ছি না। একটি কথা খুব স্পষ্ট- এই অপকৌশলে জনরায়কে অগ্রাহ্য করার প্রবণতা গণতান্ত্রিক সমাজে বেমানান। এর পরিণতি নিশ্চিহ হওয়া।

নির্বাচন দিতে আওয়ামী লীগ ভয় পায় মন্তব্য করে সাবেক এই রাষ্ট্রদূত বলেন, দেশের মানুষ পরিবর্তন চায়, এই সরকারের বিদায় চায়। শুধু তাই নয়, তারা (জনগণ) আওয়ামী লীগ সরকারের বিকল্প হিসেবে বিএনপিকে মনে করছে। তাই ক্ষমতা হারানোর ভয়ে আওয়ামী লীগ নির্বাচন দিতে চায় না। জোর করে ক্ষমতায় টিকে থাকতে চায়। তারা ভালো করেই জানে অতীতে বাকশাল প্রতিষ্ঠা করে রক্ষিবাহিনী দিয়ে অত্যাচার নির্যাতন করায় ক্ষমতায় যেতে তাদের ২১ বছর লেগেছে। এবার জনগণের উপর ছেড়ে দেওয়া হলে আবার কখন কবে ক্ষমতায় যাবে তার হিসাব নাই।

বিএনপির সহ প্রচার সম্পাদক আমিরুল ইসলাম খান আলীমের সভাপতিত্বে বক্তব্যে দেন- বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, নির্বাহী কমিটির সদস্য আমিনুল ইসলাম এবং সাবেক ছাত্র নেতা আব্দুল খালেক প্রমুখ।