খেলাপি ঋণের আড়ালে চলে গেছে ৪৫ হাজার কোটি টাকা!

0

জিসাফো ডেস্কঃখেলাপি ঋণ আড়াল করতে তা অবলোপনের পথ বেছে নিচ্ছে ব্যাংকগুলো। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সবশেষ তথ্য বলছে আদায় সম্ভব নয়- এমন ভেবে ঝুঁকিপূর্ণ খেলাপি ঋণ অবলোপন করা হয়েছে ৪৫ হাজার কোটি টাকা; যা মোট ঋণের প্রায় নয় শতাংশ।বিশ্লেষকরা বলছেন, অবলোপনের কারণে ঋণ পরিশোধ না করেই পার পেয়ে যাওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন ঋণ খেলাপিরা।পাঁচ বছরেও আদায় করা সম্ভব হয়নি এমন ঝুঁকিপূর্ণ ঋণকে ব্যাংকের মূল হিসাব থেকে বাদ দিয়ে লেখা হয় গোপন খাতায়। ফলে তা চলতি হিসাবের আড়ালে চলে যায়। এমন ব্যবস্থাকে বলা হয় ‘লোন রাইফ অফ’ বা ‘ঋণ অবলোপন’।

বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাবে গেল বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশের ৫৭টি ব্যাংকের অবলোপন করা এমন ঋণের পরিমাণ ৪৫ হাজার কোটি টাকা। অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স এর সাবেক সভাপতি আনিস এ খান বলেন, আমরা এই ঋণ তোলার জন্য অনেক বছর ধরে চেষ্টা করি। যখন দেখি, এটা আর আদায় হবে না তখনই তা লোন রাইফ অফ করার উদ্যোগ নিই।কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সবশেষ তথ্য বলছে, দেশের ব্যাংক খাতে ঝুঁকিপূর্ণ খেলাপি ঋণের পরিমাণ প্রায় ৬৬ হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে সরকারি ছয়টি ব্যাংকের ঝুঁকিপূর্ণ খেলাপি ঋণ ৩১ হাজার ৭৯২ কোটি টাকা।

এবং বেসরকারি ৩৯টি ব্যাংকে খেলাপি ঋণ ২৭ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা। এছাড়া, সরকারি বিশেষায়িত দুটি ও বিদেশি নয়টি ব্যাংকেও আছে, বড় অংকের ঝুঁকিপূর্ণ ঋণ।বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহ উদ্দিন আহমেদ, যারা ঋণ খেলাপি তারা খুব ভালো আইনজীবী নিয়োগ দেন। কিন্তু ব্যাংক থেকে সিরিয়াস নেয়া হয় না। যাদের ঋণ অবলোপন করা হয়েছে, আইনত তাদের বিরুদ্ধে খুব বেশি জোরালো পদক্ষেপ নেয়া হয় না। অতএব এটা একটি বোঝা হয়ে দাঁড়ায়।অবলোপনকৃত ঋণকে ব্যাংকিং খাতের ক্ষত হিসেবে দেখছেন বিশ্লেষকরা।

অর্থ ঋণ আদালতের আইনজীবী মোকছেদুল ইসলাম বলেন, ব্যাংকারদের সদিচ্ছার অভাবেই খেলাপি ঋণ আদায় হচ্ছে না।