খালেদা জিয়ার মুক্তিই প্রথম এবং প্রধান শর্ত – মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

0

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি হচ্ছে বিএনপি’র এক নম্বর দাবি, এক নম্বর শর্ত। তাকে মুক্ত করতে হবে তারপর অন্য কিছু আলোচনা হবে। তার আগে অন্য কিছু নিয়ে আলোচনা করবো না।

বললেন মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচাস্থ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি ভবনে স্বাধীনতা হলে এক আলোচনায় তিনি এসব কথা বলেন।

জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির (জাগপা) ৩৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম’ শীর্ষক আলোচনার আয়োজন করা হয়।

এতে সভাপতিত্ব করেন জাগপার সভাপতি অধ্যাপিকা রেহেনা প্রধান।উক্ত আলোচনা সভায়

মির্জা ফখরুল আরও বলেন, ‘এরা মূলত কতটা দুর্বল, এতটা ছোট মানসিকতা যে, তারা দল ভাঙতে চায়। সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে মিথ্যা প্রচারণা চালিয়ে দলের মধ্যে বিভ্রান্তি করতে চায়। কিন্তু ইতিহাস বলে, এই সব মিথ্যা প্রচার করে জনগণকে বিভ্রান্ত করা যায় না, সম্ভব নয়।

তিনি বলেন, বিএনপি নির্বাচনমুখী দল। গণতন্ত্রে বিশ্বাস করি। কিন্তু নির্দলীয় সরকারের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত জাতীয় নির্বাচনে যাব না। স্থানীয় সরকার নির্বাচনে আমরা বরাবরই অংশগ্রহণ করে আসছি। নীতিগতভাবে এটা আমরা ঘোষণা দিয়েই করছি।

একটি ইংরেজি দৈনিকের উদ্ধৃতি দিয়ে বিএনপির মহাসচিব বলেন, সুন্দরবন এমন একটা প্রাকৃতিক সম্পদ যা দেশকে দুর্যোগের হাত থেকে রক্ষা করে। বিশ্ব ঐতিহ্যের এই বনকে সরকার ধ্বংস করে ফেলার জন্য এরই মধ্যে ১৯০টি শিল্প কারখানা করার অনুমতি দিয়েছে। কারণ পরিবেশ বিজ্ঞানীসহ সবার মত এই ধরনের বনের কাছে শিল্প কারখানা হলে যে ধরনের কার্বন মনোঅক্সাইড গ্যাস বেরিয়ে আসে তাতে বন ধ্বংস হয়ে যাবে। এরই মধ্যে সরকার সবার বিরোধিতাকে তোয়াক্কা না করে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র করছে।

বিএনপির ৮ নেতার দুদকের তদন্ত প্রসঙ্গে তিনি বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশন দুর্নীতি দমনের কোনো কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারছে না। এর প্রমাণ দুদকের একটি সাজানো মামলায় খালেদা জিয়াকে কারাগারে দেয়া হয়েছে। বিএনপি নেতাদের নামে অর্থ লেনদেনের মিথ্যা তদন্তে নেমেছে।