কারওয়ান বাজার কে ভেঙ্গে মহাখালী ও যাত্রাবাড়ী নিয়ে যাওয়া হচ্ছে

0

ঢাকা: ভেঙে দেওয়া হচ্ছে রাজধানীর ব্যস্ত কারওয়ান বাজার। এর বিকল্প হিসেবে আমিনবাজার ও মহাখালীতে গড়ে উঠেছে পাঁচতারা মানের মার্কেট। আরেকটি মার্কেট হচ্ছে যাত্রাবাড়ীতে। বাজার সংশ্লিষ্ট ট্রাকগুলোর জায়গা হবে আমিনবাজার ও মহাখালী টার্মিনালে।

এসব তথ্য জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আনিসুল হক।

শনিবার (৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনি মিলনায়তনে ‘মিট দ্য রিপোর্টার্স’ অনুষ্ঠানে কথা বলছিলেন তিনি। এটি সংগঠনটির নিয়মিত আয়োজন।

কারওয়ান বাজারের বর্জ্য ও বাজারকেন্দ্রিক যানজটের সমাধানে বিকল্প বাজার তৈরি একটি উপায় বলে ব্যাখ্যা করে মেয়র আনিসুল হক বলেন, কারওয়ান বাজারের পরিবর্তে তিনটি বিকল্প রয়েছে। আমিনবাজার, মহাখালী ও যাত্রাবাড়ীতে ভালো মার্কেট আছে। আমিনবাজার ও মহাখালীতে পাঁচতারা মানের মার্কেট প্রস্তুত আছে। যাত্রাবাড়ীও প্রস্তুত হচ্ছে।

তিনি বলেন, ট্রাকগুলোকে সরে যেতে হবে। কিন্তু একটি জায়গা তো তাদের দিতে হবে। সে কারণে আমিনবাজারে বড় টার্মিনাল করতে জমি চেয়েছি। মতিয়া আপার (কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী) সঙ্গেও পরামর্শ হয়েছে। ১৫ একর জমি এজন্য আমার প্রয়োজন বলে জানিয়েছি। মহাখালী ও আমিনবাজারে টার্মিনাল হবে।

আনিসুল হক বলেন, কারওয়ান বাজার ট্রাফিকে পরিবর্তন হবে। সংশ্লিষ্টরা রাজী হয়েছেন, কারওয়ান বাজার তুলে দেওয়া হবে। ৪০ বছরে তোলা যায়নি।

রিপোর্টারদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ট্রাক মালিকদের নিয়ে রিপোর্ট করুন। রাস্তায় বাস দাঁড়াতে নিষেধ করেছি, তবু দাঁড়াচ্ছে। রিপোর্ট হওয়া দরকার।

হকার উচ্ছেদে ফার্মগেটে স্বস্তি এসেছে- মন্তব্য করে ডিএনসিসি মেয়র বলেন, হকারদের রাতারাতি তুলে দেওয়ার বিষয়ে ভাবতে হয়, তাদের একটি পরিবার আছে। সে পরিবার তিনদিনের মাথায় খাবারই পাবে না। এছাড়া, হকার উচ্ছেদে সারা শহরে চুরি-ডাকাতি রাহাজানি অনেক বেড়ে যাবে। সব ভেবে তাই ধীরে কাজ করতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, ফুটপাতকে সিঙ্গাপুরের মতো ফুলে ফুলে ঢাকতে চাই। আড়াইশ‘ লোক কাজ করছে ‘গ্রিন ঢাকা’ গড়তে।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডিআরইউ সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশা। পরিচালনায় ছিলেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস হোসেন।