আসন্ন পৌর নির্বাচন মনিটরিং সেল গঠনের সিদ্ধান্ত বিএনপির

0

জিসাফো ডেস্কঃ পৌরসভা নির্বাচন তদারকির জন্য কেন্দ্রীয় ও বিভাগীয় পর্যায়ে ‘মনিটরিং সেল’ গঠন করবে বিএনপি।

বৃহস্পতিবার রাতে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সভাপতিত্বে দলের স্থায়ী কমিটির সভায় এই সিদ্ধান্ত হয়।

সভা শেষে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ কথা জানান।

ফখরুল বলেন, “পৌর নির্বাচন সুষ্ঠু হওয়ার সম্ভাবনা একেবারেই নেই বলে স্থায়ী কমিটি মনে করছে। যেহেতু বিএনপি একটি গণতান্ত্রিক দল, গণতন্ত্রকে রক্ষা করার জন্য, গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনার জন্য নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে, সেহেতু বিএনপি এই নির্বাচনকে সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য একটি কেন্দ্রীয় নির্বাচন মনিটরিং সেল গঠন করবে।

“সেইসঙ্গে প্রতিটি বিভাগে একটি করে বিভাগীয় মনিটরিং সেল গঠন করা হবে। প্রত্যেকটি জেলা ও উপজেলা কমিটিকে সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন পরিচালনার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেয়া হচ্ছে।”

এক বছরের বেশি সময় পর বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ৯টায় খালেদা জিয়ার গুলশানের কার্যালয়ে দলের স্থায়ী কমিটির এই বৈঠক বসে। প্রায় দেড় ঘণ্টা আলোচনা করেন বিএনপির শীর্ষ নেতারা।

মির্জা ফখরুল অভিযোগ করেন, পৌর নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে সারা দেশে বিএনপি নেতা-কর্মীদের গ্রেপ্তার করা শুরু হয়েছে। তফসিল ঘোষণার পর থেকে এ পর্যন্ত এক হাজারের বেশি নেতা-কর্মী গ্রেপ্তার হয়েছে। সব মিলে গত এক মাসে গ্রেপ্তার ৫ হাজারের উপরে।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, “এই গণগ্রেপ্তার বন্ধ করা না হলে এবং গ্রেপ্তার হওয়া নেতা-কর্মীদের মুক্তি দেয়া না হলে কোনোমতেই নির্বাচনে ‘লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড’ তৈরি হবে না এবং সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না বলে স্থায়ী কমিটি মনে করছে।”

বিভিন্ন পৌরসভায় জেলা প্রশাসক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে রিটার্নিং অফিসার নিয়োগের সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, “নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তার সংকট না থাকলেও জনপ্রশাসনে চরম দলীয়করণ থেকে পৌর নির্বাচনে কারচুপির পরিকল্পনা নিয়ে এসব রিটার্নিং অফিসার নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

“আমরা দেখেছি, মনোনয়নপত্র গ্রহণ এবং যাচাই-বাছাইয়ের মধ্যে আমাদের আশঙ্কা সত্য প্রমাণিত হয়েছে। ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়ে যাওয়ার পরেও মনোনয়নপত্র গ্রহণ করা হয়েছে।”

‘অনিয়ম’ বাদ দিয়ে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের স্বার্থে নির্বাচন কমিশনকে ‘সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ’ ভূমিকা পালনের জন্য বিএনপির শীর্ষ নেতারা আহ্বান জানিয়েছেন।

“একইসঙ্গে নির্বাচনে নিয়োজিত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী হিসেবে নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালন করার আহ্বানও জানান বিএনপির স্থায়ী কমিটি,” বলেন ফখরুল।

বিভিন্ন জায়গায় প্রার্থীতা প্রত্যাহারের জন্য বিএনপির প্রার্থীদের ভয় দেখানো ও তাদের ওপর চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন মির্জা ফখরুল।

আচরণবিধি লঙ্ঘনের জন্য তিনজন সংসদ সদস্যকে কারণ দর্শানোর নোটিশের প্রসঙ্গ তুলে ফখরুল বলেন, “আমাদের বক্তব্য হলো শোকজ করাটাই যথেষ্ট নয়। সরকারি দলের প্রভাব বিস্তার করার শক্তি বেশি থাকে। তাই আমরা কমিশনকে এ ব্যাপারে নিরপেক্ষ হওয়ার জোর দাবি জানাচ্ছি।”

খালেদা জিয়ার সভাপতিত্বে এই বৈঠকে মওদুদ আহমদ, মাহবুবুর রহমান, আ স ম হান্নান শাহ, জমির উদ্দিন সরকার, সারোয়ারি রহমান, আবদুল মঈন খান, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর উপস্থিত ছিলেন।