আওয়ামী লীগ ভারতের তাবেদার বিএনপি বন্ধুত্ব চায়, কারো দাসত্ব নয়

0

জিসাফো ডেস্কঃ শক্তির ইচ্ছার বাস্তবায়ন করবো না জনগণের ইচ্ছার বাস্তবায়ন করবো’ উল্লেখ করে বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, স্বাধীন দেশের সরকার যদি ক্ষমতাধর হয় তাহলে তা দেশের সর্বনাশ ডেকে আনে। যতক্ষণ পর্যন্ত গণতন্ত্রের পথ প্রশস্ত না হবে ততক্ষণ দেশের লোকের গণতান্ত্রিক মুক্তি হবে না।

আজ সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে প্রবীণ সাংবাদিক ও বুদ্ধিজীবী সাদেক খানের মুত্যুতে আয়োজিত স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে গয়েশ্বর এসব কথা বলেন। স্মরণসভার আয়োজন করে ডেমোক্রেটিক মুভমেন্ট।

এক-এগারোর প্রতি ইঙ্গিত করে গয়েশ্বর চন্দ্র বলেন, বর্তমান শাসকদল আওয়ামী লীগ যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে তাতে করে কিছু দিনের মধ্যেই আমাদের জেলে যেতে হবে। তবে এমনটি ভাবার কোনো কারণ নেই যে জেলখানায় শুধু আমরাই যাবো, অল্প কিছু দিনের মধ্যে সেখানে তাদের সঙ্গেও দেখা হবে। বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আসলামের প্রসঙ্গ টেনে বিএনপির এ জ্যৈষ্ঠ নেতা বলেন, মোসাদ ইসরায়েলের গোয়েন্দা সংস্থা। তার মানে এই নয় যে ইসরাইলের সব লোক মোসাদের সঙ্গে জড়িত। তাছাড়া মোসাদের সঙ্গে সরকার উৎখাতের ষড়যন্ত্র করলে সরকারের এতদিন ক্ষমতায় থাকার কথা নয়। আমার জানামতে এই সাত দিনের মধ্যে আসলামের কাছে কিছুই জানতে চাওয়া হয়নি।

আওয়ামী লীগ ভারতের তাবেদার উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাংলাদেশের ১৬ কোটি জনগণ নয়, ভারতের সন্তুষ্ট করেই ক্ষমতায় থাকবে আওয়ামী লীগ। কারণ তাদের আবদার পূরণ করেই এখনও তারা ক্ষমতায় আছে।

বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য বলেন, বিএনপি বন্ধুত্ব চায়, কারো দাসত্ব নয়। পারস্পরিক স্বার্থ রক্ষা করেই বন্ধুত্ব চাই। কিন্তু নিজেদের স্বার্থ বিকিয়ে দিয়ে বন্ধুত্ব চাই না। আর বন্ধুত্ব মানেই এই নয় যে, নিজেদের রাষ্ট্র পরিচালনায় অন্যের নির্দেশনা মানতে হবে।

তিনি বলেন, সরকারকে আকার ইঙ্গিতে সন্তুষ্ট করতে পারলে যেমন বাঁচা যাবে তেমনি ক্ষমতায় কে এলো কে গেল তা বিবেচনায় না নিয়ে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করতে পারলে আওয়ামী লীগ সরকারকে ক্ষমতায় থেকে বিদায় করা যাবে।

গণমাধ্যম যথাযথভাবে তাদের দায়িত্ব পালন করছে না দাবি করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন, যত দোষ বিএনপির, আওয়ামী লীগের যেন কোনো দোষ নেই। তাছাড়া আমাদের একে অপরের প্রতি অবিশ্বাস কিভাবে সৃষ্টি করা যায় তা নিয়ে কাজ করছে হাসিনাবান্ধব বেশ কিছু গণমাধ্যম।

স্মরণসভায় ডেমেক্রেটিক মুভমেন্টের সভাপতি শাহাদাত হোসেন সেলিমের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন, বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শামছুজ্জামান দুদু, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বেগম সেলিমা রহমান, গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান জাফরুল্লাহ চৌধুরী প্রমুখ।