অসুস্থ হলেও রোজা রাখবেন খালেদা জিয়া

0

দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া অসুস্থ হলেও তিনি রোজা রাখবেন। কারা কর্তৃপক্ষ তার জন্য ইফতার ও সেহরির ব্যবস্থা করেছে। দুদিন আগেই তিনি কারা কর্তৃপক্ষকে রোজা রাখার বিষয়টি জানিছেন।

কারা সূত্র জানায়, সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। খালেদা জিয়ার জন্য সেহরি ও ইফতারের খাবার বাবুর্চি রান্না করবেন। সেহরিতে ভাত, মাছ, মাংস, ডাল, সবজি, কলা, দুধ থাকবে। দুধ,কলা ও ডাল-সবজি প্রতিদিন থাকবে। মাছ-মাংস একেকদিন একেক রকম থাকবে। ইফতারে থাকছে মুড়ি, ৫০ গ্রাম ছোলা, পিয়াজু, আলুর চপ, বেগুনি ও ৪ পিস জিলাপি, লেবুর শরবত, খাসির হালিম ও কাবাব।

কারা চিকিৎসক মাহমুদুল হাসান বলেন, খালেদা জিয়ার খাবারের বিষয়ে কোনো বিধিনিষেধ নেই। তিনি স্বাভাবিক খাবার খাচ্ছেন। তবে বাইরের খাবার খান না। এক প্রশ্নের জবাবে এই চিকিৎসক বলেন, খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের অবস্থা আগের মতোই আছে। কষ্ট হওয়ায় তিনি হাঁটাচলা করেন না। খালেদা জিয়ার পায়ের সমস্যা দীর্ঘদিনের। কারাবন্দি হওয়ার আগে থেকেই তার এ সমস্যার চিকিৎসা চলছে। কারাগারে আসার পর সমস্যা দেখা দেওয়ায় তার চিকিৎসার জন্য মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়। বোর্ডের চিকিৎসকদের পরামর্শে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা চলছে। এছাড়া তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক মালিহা রশিদও কারাগারে এসে দেখেছেন। তিনিও চিকিৎসার বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছেন। তাদের সুপারিশের ভিত্তিতেই কিছু পরীক্ষা-নীরিক্ষা এবং চিকিৎসা চলছে। তিনি নিয়মিত ওষুধ খাচ্ছেন।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ দুর্নীতি মামলায় ৫ বছরের সশ্রম দন্ডপ্রাপ্ত আসামি হিসেবে পুরান ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে আছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া। কারা সূত্র জানায়, কারা ভবনের ডে-কেয়ার সেন্টারের দ্বিতীয় তলার একটি সেলে রাখা হয়েছে। কারাগারের সব নিয়ম তিনি মেনে চলছেন। তার সেবাযত্মের জন্য সঙ্গে রয়েছেন গৃহকর্মী ফাতেমা। কারাবিধি অনুযায়ী তাকে খাবার সরবরাহ করা হচ্ছে। খালেদা জিয়ার সেবায় সার্বক্ষণিক একজন নারী ফার্মাসিস্ট, প্রয়োজন হলে একজন চিকিৎসকও থাকেন। নিরাপত্তার জন্য একজন নারী উপ-কারাধ্যক্ষের নেতৃত্বে সার্বক্ষণিক ৪ জন নারী কারারক্ষী থাকেন। এছাড়া কারাগারের বাইরেও রয়েছেন একজন উপ-কারাধ্যক্ষের নেতৃত্বে একদল কারারক্ষী।

ঢাকা বিভাগীয় ডিআইজি প্রিজন মো. তৌহিদুল ইসলাম বলেন, আমরা আমাদের দায়িত্ব সুষ্ঠুভাবে পালন করার চেষ্টা করছি। প্রথম শ্রেণির মর্যাদাপ্রাপ্ত বন্দি খালেদা জিয়া। তিনি আমাদের সঙ্গে হাসিমুখে কথা বলেন, কাউকে অবজ্ঞা করেন না। তার যেন কোনো সমস্যা না হয় সেদিকে সার্বক্ষণিক খেয়াল রাখছি।