অনির্বাচিত সরকার দেশকে অন্যের হাতে তুলে দেয়ার ষড়যন্ত্রে ব্যস্ত :বেগম জিয়া

0

জিসাফো ডেস্কঃ এই অনির্বাচিত সরকার দেশ পরিচালনার নামে আজকে দেশকে অন্যের হাতে তুলে দেয়ার ষড়যন্ত্রে ব্যস্ত। একমাত্র দেশের মানুষই এ ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে পারে।

তিনি বলেছেন, দেশের সার্বভৌমত্ব আছে কিনা, তা নিয়ে আজ আমরা শঙ্কিত। কারণ, আজকে মানুষ নির্ভয়ে-নির্বিঘ্নে কোনো কাজ করতে পারে না। এই অনির্বাচিত সরকার দেশ পরিচালনার নামে আজকে দেশকে অন্যের হাতে তুলে দেয়ার ষড়যন্ত্রে ব্যস্ত। একমাত্র দেশের মানুষই এ ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে পারে। এ জন্য দেশের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

পবিত্র রমজানের ১৬তম দিন বুধবার সন্ধ্যায় রাজধানীর ইস্কাটনের লেডিস ক্লাব মিলনায়তনে বিএনপিপন্থী চিকিৎসকদের সংগঠন ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ড্যাব) আয়োজিত ইফতার মাহফিলে অংশ নিয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ সব কথা বলেন খালেদা। এর আগে, সন্ধ্যা পৌনে ৭টায় ইফতার মাহফিলে এসে পৌঁছান তিনি।

ড্যাব সভাপতি অধ্যাপক ডা একেএম আজিজুল হক ইফতার মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন।

সরকারের দিকে ইঙ্গিত করে খালেদা জিয়া বলেন, ক্ষমতায় আসার পর দেশকে অন্যের হাতে তুলে দেয়া হয়েছিল। আপনারা দেখেছেন, বিডিআর (বর্তমানে বিজিবি) হত্যার ঘটনার মাধ্যমে এর সূত্রপাত হয়েছে। দেশের মানুষকে ভয়ভীতি, দমন ও হত্যা করে দেশকে নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করছে সরকার।

তিনি আরো বলেন, বিজিবি আজ সীমান্তে মানুষকে রক্ষা করতে পারছে না। (অন্য দেশের বাহিনী) আজকে দেশের অভ্যন্তরে ঢুকে মানুষকে হত্যা করে যায়। কিন্তু ব্যর্থ সরকারের একটি প্রতিবাদ করার সাহসও করতে পারছে না। এমনকি মিয়ানমার পর্যন্ত আজকে আমাদের দেশের মধ্যে আক্রমণ চালাচ্ছে। অথচ বিজিবির আজ কোনো ক্ষমতা নেই, তারা অসহায়। নিজের দেশের মানুষকে হত্যা করে আজকে তারা নিজেরাই অসহায় হয়ে গেছে।

বিএনপির চেয়ারপারসন বলেন, ‘কে কোন দল করি, কে ছোট কে বড়, কে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান, তা আজ বড় কথা নয়। দেশ রক্ষার জন্য আজকে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে, এটাই আজ সবচেয়ে বড়।’

মূল মঞ্চে খালেদা জিয়ার সঙ্গে একই টেবিলে বসে ইফতার করেন- বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়; ভাইস চেয়ারম্যান চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, বেগম সেলিমা রহমান; ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দীন আহমদ, শিক্ষক অধ্যাপক ড. মাহবুব উল্লাহ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. খন্দকার মুস্তাহিদুর রহমান, ড্যাব সভাপতি অধ্যাপক ডা. এ কে এম আজিজুল হক, সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক সিনিয়র সাংবাদিক রুহুল আমিন গাজী, শিক্ষক কর্মচারী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ সেলিম ভুঁইয়া প্রমুখ।

ইফতারে বিএনপি নেতাদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন- ভাইস চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) আলতাফ হোসেন চৌধুরী, যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, মজিবর রহমান সরোয়ার, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক এমরান সালেহ প্রিন্স, ডা. সাখাওয়াৎ হাসান জীবন, ছাত্রদল সভাপতি রাজীব আহসান, সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসান প্রমুখ।
এতে আরো উপস্থিত ছিলেন- ঢাবির সাবেক প্রো-ভিসি অধ্যাপক আ ফ ম ইউসুফ হায়দার, শিক্ষক অধ্যাপক ড. সদরুল আলম, অধ্যাপক ড. আক্তার হোসেন, অধ্যাপক ড. সুকোমল বড়ুয়া, সিনিয়র সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহ প্রমুখ।

ড্যাব নেতাদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন- মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, অধ্যাপক ডা. সৈয়দ মাহবুব আলম, অধ্যাপক ডা. মুস্তাক রহিম স্বপন, অধ্যাপক ডা. রফিকুল কবির লাবু, অধ্যাপক ডা. আব্দুস সালাম, অধ্যাপক ডা. শাহ আলম তালুকদার, অধ্যাপক ডা. শহিদুল আলম, অধ্যাপক ডা. হারুন আল রশিদ, অধ্যাপক ডা. ফরহাদ হালিম ডোনার, অধ্যাপক ডা. প্রভাত চন্দ্র বিশ্বাস বাবু,  ডা. মাগফুর রহমান প্রমুখ।